কুষ্টিয়ায় অ্যালকোহল পানে তিন বন্ধুর মৃত্যু

আপডেট: 10:37:24 12/12/2019



img
img
img

শ্যামলী খন্দকার, কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ায় বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে নেশা করতে হোমিওপ্যাথির অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় খেয়ে তিন বন্ধু জাহিদুল রহমান সাজিদ (১৮), ফাহিম হোসেন (১৭) ও পাভেল হোসেন (১৭)-এর মৃত্যু হয়েছে। বাকি আরো তিন বন্ধু গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। এদের মধ্যে সুরুজ নামে একজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
মৃত সাজিদ বিকেএসপির বাস্কেটবল খেলোয়াড় ও কুষ্টিয়া শহরের আমলাপাড়া এলাকার মৃত সফিকুর রহমানের ছেলে; ফাহিম হোসেন কুষ্টিয়া ইসলামীয়া কলেজের ছাত্র ও থানাপাড়া এলাকার সাগর আহাম্মেদের ছেলে এবং পাভেল হোসেন শহরের মৌ ফ্যাশানের কর্মচারী ও চড় থানাপাড়া এলাকার আরমান শেখের ছেলে ।
পুলিশ ও মৃত সাজিদের সহপাঠীরা জানায়, বন্ধু সাজিদের জন্মদিন উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রায় ১০-১২ জন বন্ধু মিলে শহরের ইসলামীয়া কলেজের একটি কক্ষে কেক কাটার আয়োজন করে। সেখানে কেক ও বিরিয়ানি খাওয়ার পর ছয় বন্ধু নেশা করতে কোমল পানীয়র সঙ্গে হোমিওপ্যাথির ‘ডাইলেশন’ নামে অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় মিশিয়ে পান করে। এর কিছুক্ষণ পরে গুরুতর অসুস্থ হলে তাদেরকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সন্ধ্যার কিছু আগে সাজিদ এবং তারপর ফাহিম ও রাত সাড়ে সাতটার দিকে পাভেল হোসেন মারা যায়।
কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার তাপসকুমার সরকার জানান, দুপুরের পরে আননোন পয়জনিংয়ে আক্রান্ত হয়ে ছয়জন একসঙ্গে হাসপাতালে আসে। তাদের মধ্যে তিনজন মারা যায়। বাকিদের অবস্থা আশংকাজনক। সুরুজ নামে একজনকে রাজশাহী রেফার করা হয়েছে।
কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে অবস্থান করা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ। ইতিমধ্যে যেখান থেকে এই নিষিদ্ধ ওষুধ কেনা হয়েছে, সেই ‘রাফি হোমিও হল’-এর বিক্রেতাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন