কোটচাঁদপুরে উপজেলা পরিষদের সভা বর্জন

আপডেট: 05:53:02 10/09/2020



img

কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : কোটচাঁদপুর উপজেলা চেয়ারম্যানের খামখেয়ালিপনার অভিযোগ এনে বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় দুইজন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত দুইজন মহিলা সদস্যসহ উপজেলার সব ইউপি চেয়ারম্যান মিটিং বর্জন করেছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় উপজেলা পরিষদের হল রুমে মাসিক সভা শুরু হয়। সভা চলাকালে জনপ্রতিনিধিরা তাদের দীর্ঘদিনের ক্ষোভের কথা তুলে ধরেন। এতে উপজেলা চেয়ারম্যান শরিফুননেছা মিকির সঙ্গে তাদের কথাকাটাকাটি হয়। পরে নয়জন জনপ্রতিনিধি উপস্থিতির স্বাক্ষর না করে সভা বর্জন করে বেরিয়ে যান।
সভা বর্জনকারীরা হলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিয়াজ হোসেন ফারুক, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাদিয়া আক্তার পিংকী, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নাছরিন বেগম, সুচিত্রা মালাকার, সাবদালপুর ইউপি চেয়ারম্যান নওশের আলি নাছির, দোড়া ইউপি চেয়ারম্যান কাবিল উদ্দীন বিশ্বাস, বলুহর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন, কুশনা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান এবং এলাঙ্গী ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান খান।
সভা বর্জন করে ওই সব জনপ্রতিনিধি সাংবাদিকদের বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান শরিফুননেছা মিকির মতো তারাও নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। কিন্তু সরকারি বরাদ্দের কোনো বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান তাদের সঙ্গে আলাপ করে না। তিনি সভায়  উপস্থিতদের স্বাক্ষর করে দায় সারেন।
তাদের অভিযোগ, উপজেলা চেয়ারম্যান নিজের মতো করে কাজ করেন। ফলে অন্যরা জনপ্রতিনিধি হলেও নিজ এলাকার মানুষের কোনো উপকারে আসতে পারেন না। কেনা-কাটা থেকে শুরু করে বিতরণের কাজও মিকি নিজেই করেন। কখনো অন্যদের ডাকার প্রয়োজন মনে করেন না। যে কারণে বাধ্য হয়ে তারা সভা বর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বিষয়টি লিখিতভাবে জেলা প্রসাশককে জানাবেন বলেও তারা জানান।
এই বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, মিটিং বর্জনের কথাটি ঠিক না। একঘণ্টা ধরে মিটিং চলছিল। শেষের দিকে দুই-একজন করে হল রুম থেকে বেরিয়ে গেছেন।
উপস্থিতির স্বাক্ষরের বিষয়টি জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, ‘কেউ উপস্থিত থেকে স্বাক্ষর না করে থাকলে তার তো স্বাক্ষর নিতে হবে, তাই না?’
উপজেলা চেয়ারম্যান শরিফুননেছা মিকি বলেন, ‘অন্যান্য সদস্যরা নিয়মবহিভর্‚ত বায়না করলে তো হবে না। যেকোনো অনুদান বা সরকারি বরাদ্দ নিয়ে কাজ করতে গেলে আমার জবাবদিহিতা রয়েছে। যে কারণে আমার এখতিয়ার অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছি। এতে হট্টগোল করার কিছু নেই।’

আরও পড়ুন