কোটচাঁদপুর বিএনপিতে বিবাদ, ১৬ নেতার পদত্যাগ

আপডেট: 06:36:05 22/03/2020



img

কাজী মৃদুল, কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) : অতিসম্প্রতি ঝিনাইদহ জেলা কমিটি কোটচাঁদপুর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা দেয়। এক পক্ষ একে ‘মনগড়া আহ্বায়ক কমিটি’ আখ্যা দিয়েছে। এর ফলে কোটচাঁদপুর উপজেলা বিএনপি দ্ইু ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। হাতাহাতির মতো ঘটনাও ঘটেছে নেতাদের মধ্যে।  ক্ষিপ্ত নেতাদের ১৬ জন একযোগে পদত্যাগও করেছেন।
পদত্যাগী নেতাদের মধ্যে চারজন যুগ্ম-আহ্বায়ক রয়েছেন। তারা হলেন, আলমগীর খান, সাইদুর রহমান, মনিরুল ইসলাম এবং বজলুর রহমান। বাদবাকি ১২ জন নির্বাহী সদস্য।
এই বিষয়ে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সিরাজুল ইসলাম সিরাজ বলেন, কোনো আলাপ-আলোচনা ছাড়াই জেলা কমিটির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট এস এম মশিউর রহমান ও সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট এম এ মজিদের স্বাক্ষরে একটি মনগড়া কমিটি গঠন করে তা ফেসবুকে দেওয়া হয়েছে। ৪১ সদস্যের এই কমিটিতে আব্দুর রাজ্জাককে আহ্বায়ক ও মিজানুর রহমান খানকে সদস্য সচিব করা হয়।
সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘এটা সম্পূর্ণ গঠনতন্ত্রপরিপন্থী। আমরা জেলার দেওয়া মনগড়া কমিটি মানি না।’
হাতাহাতির ঘটনা স্বীকার করে তিনি বলেন, নতুন করে আহ্বায়ক কমিটি দিতে হবে। বিগত কমিটিতে গুরুত্বপর্ণ পদে থাকা নেতারা আহ্বায়ক কমিটিতে থাকার পরও ১৬ জন এ কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন।
বিএনপি ঝিনাইদহ জেলা আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট এম এ মজিদ সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘কোটচাঁদপুরের প্রতিটি ইউনিয়ন কমিটি রেজুলেশনের মাধ্যমে নেতা নির্বাচনে আমাদের কাছে প্রস্তাবনা দিয়েছেন। আমরা তারই ভিত্তিতে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে দিয়েছি। এটা মনগড়া কমিটি নয়। যারা বৃদ্ধ, অসুস্থ ও বিগত দিনে যারা আন্দোলন থেকে দূরে ছিলেন, তাদেরকে কমিটিতে রাখা হয়নি। আমরা চেয়েছি বিএনপিতে নতুন নেতৃত্ব আসুক। বিষয়টি নিয়ে আমরা কেন্দ্র পর্যায়ে আলাপ করেছি।’
‘কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আমাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছেন যে, কেউ যদি দলের জন্য এগিয়ে না আসতে চায়, তাদেরকে বাদ রেখেই পথ চলতে। তাছাড়া এ কমিটি অল্পদিনের জন্য। এখন বিরোধিতা যারা করছেন, আগামী সম্মেলনে তারাও তো পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে নেতা হয়ে আসতে পারেন। সুতরাং আমি বিরোধিতা করার মতো কোনো কারণ দেখছি না,’ বলেন অ্যাডভোকেট মজিদ।

আরও পড়ুন