কোভিডকে ভয় নয়, হোয়াইট হাউসে ফিরে ট্রাম্প

আপডেট: 02:33:19 06/10/2020



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : তিন রাত হাসপাতালে কাটানোর পর হোয়াইট হাউসে ফিরে কোভিড-১৯ কে ভয় না পাওয়ার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের করোনাভাইরাস আক্রান্ত প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প।
সোমবার হোয়াইট হাউসে ফিরে ছবি তোলার জন্য দাঁড়িয়ে ট্রাম্প তার সার্জিক্যাল মাস্ক খুলে ফেলেন।
হোয়াইট হাউসে ফেরার পর তার অনুভূতি কী, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে ট্রাম্প বলেন, “সত্যিকারের ভালো।”
রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসির নিকটবর্তী সামরিক হাসপাতাল থেকে হেলিকপ্টারযোগে হোয়াইট হাউসে ফেরেন ট্রাম্প। এ সময় সাদা রঙের সার্জিক্যাল মাস্ক পরা ছিলেন তিনি, কিন্তু হোয়াইট হাউসের দক্ষিণ চত্বরের সিঁড়ি দিয়ে বারান্দায় ওঠার পর তিনি মাস্ক খুলে ফেলে ছবি তোলার জন্য দাঁড়ান, স্যালুট দেন ও বুড়ো আঙুল উঁচিয়ে ‘সব কিছু ঠিক আছে’ বলে ইঙ্গিত দেন।  
তারপর তিনি ফিরে হোয়াইট হাউসের ভেতরে ঢুকে যান আর তখনো মাস্কটি তার পকেটে ঢোকানো ছিল, টেলিভশন ফুটেজে এমনটিই দেখা গেছে।
যে মহামারীতে বিশ্বজুড়ে দশ লাখেরও বেশি এবং যুক্তরাষ্ট্রে দুই লাখ নয় হাজারেরও বেশি লোকের মৃত্যু হয়েছে সেই কোভিড-১৯ এর হুমকিকে তেমন আমলে নেননি ট্রাম্প।
রেকর্ড করা এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেছেন, “এটাকে আপনার ওপর আধিপত্য করতে দেবেন না। এটাকে ভয়ও পাবেন না। আমরা ফিরছি, আমরা কাজে ফিরছি। এটাকে আপনার ওপর আধিপত্য করতে দেবেন না। এ থেকে বের হয়ে আসনু, সতর্ক থাকুন।”
রিপাবলিকান ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের ৩ নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ফের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেন তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী।
নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর শুক্রবার ট্রাম্প ওয়ালটার রিড ন্যাশনাল মিলিটারি মেডিকেল সেন্টারে ভর্তি হয়েছিলেন।
ফেরার কিছুক্ষণ পরই তার টুইটার অ্যাকাউন্টে বজ্রধ্বনিসম যন্ত্রসংগীত যুক্ত করা একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়। এতে দেখা যায়, তাকে বহনকারী হেলিকপ্টার মেরিন ওয়ান হোয়াইট হাউসের প্রাঙ্গণে নামার পর ট্রাম বের হয়ে হেঁটে হোয়াইট হাউসের দিকে যাচ্ছেন, মাঝে দাঁড়িয়ে ছবির জন্য পোজ দিচ্ছেন এরপর হোয়াইট হাউসের দক্ষিণের বারান্দায় দাঁড়িয়ে স্যালুট দিচ্ছেন। ভিডিওটি দ্রুত দশ লাখের মতো শেয়ার হয়ে যায়।
করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধ করার জন্য নির্দেশিত পারস্পরিক দূরত্ববিধিকে বারবার অবজ্ঞা করেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। গত মঙ্গলবার প্রথম মুখোমুখি বিতর্ক চলাকালে সবার থেকে অনেক দূরে থাকার পরও বাইডেন মাস্ক পরে আছেন বলে প্রতিদ্বন্দ্বীকে উপহাস করেছিলেন তিনি।
ওয়ালটার রিড হাসপাতালে তাকে চিকিৎসা দেওয়া মেডিকেল টিম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ৭২ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে ৭৪ বছর বয়সী ট্রাম্পের জ্বর ছিল না এবং তার অক্সিজেনের মাত্রাও স্বাভাবিক ছিল।
তবে রোগটির কারণে প্রেসিডেন্টের ফুসফুসের কোনো ক্ষতি হয়েছে কিনা এবং শেষ কবে ট্রাম্পের করোনাভাইরাস নেগেটিভ এসেছিল তা জানাতে রাজি হননি তারা।
ট্রাম্প এখনো এন্টিভাইরাল ওষুধ রেমডিসিভির পাঁচ দিনের কোর্সের অধীনে আছেন এবং তাকে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত আইসোলেশনে থাকতে হবে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, হোয়াইট হাউসেই তার চিকিৎসা চলবে।
সূত্র : রয়টার্স, বিডিনিউজ

আরও পড়ুন