খুলনা বিভাগে মোট ৪৫৫ জনের করোনা শনাক্ত

আপডেট: 02:22:03 28/05/2020



img
img
img

স্টাফ রিপোর্টার খুলনা অফিস : খুলনা বিভাগের দশ জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত ব্যক্তির সংখ্যা ৪৫৫-তে পৌঁছেছে। এর মধ্যে আজ বুধবার শনাক্ত হন ১৫ জন।
এর আগে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার রুহুল কুদ্দুস আজ জানিয়েছিলেন, এই বিভাগে এখন পর্যন্ত শনাক্ত ব্যক্তির সংখ্যা ৪৪০। সন্ধ্যায় আরো ১৫ জনের আক্রান্তের খবর আসায় এই সংখ্যা দাঁড়ালো ৪৫৫-তে।
বুধবার নতুন করে যে ১৫ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে, তা খুলনা ও কুষ্টিয়া ল্যাবে পরীক্ষার ফল। এর মধ্যে খুলনা মেডিকেল কলেজ ল্যাবে দশটি ও কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ ল্যাবে পাঁচটি নমুনাকে পজেটিভ বলে শনাক্ত করা হয়।
খুলনায় শনাক্ত হওয়া দশ নমুনার মধ্যে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশের তিন সদস্য রয়েছেন। আরো রয়েছেন জেলার কয়রা উপজেলা, বটিয়াঘাটা এবং খুলনা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ ব্যারাক এলাকার একজন করে বাসিন্দা।
এছাড়া এদিন সাতক্ষীরার তিনজন ও মাগুরার একজনকে করোনা রোগী হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে খুলনা ল্যাবের পরীক্ষায়।
প্রাপ্ত তথ্যমতে, এখন পর্যন্ত বিভাগের দশ জেলার মধ্যে যশোরে সবচেয়ে বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন; যার সংখ্যা ১০০। আজ দুপুরে যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন সুবর্ণভূমিকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছিলেন। এছাড়া খুলনার ৬৫ জন, ঝিনাইদহের ৪৭, সাতক্ষীরার ৩৯,  বাগেরহাটের ২৫, নড়াইলের ২২ এবং মাগুরার ২১ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বলে শনাক্ত হয়েছেন।
আজ সকালের হিসেব অনুযায়ী চুয়াডাঙ্গার ৮৫, কুষ্টিয়ার ৩৫ এবং মেহেরপুরের ১১ জন করোনা রোগী শনাক্ত ছিলেন। সন্ধ্যায় কুষ্টিয়া ল্যাব থেকে যে পাঁচ নমুনাকে পজেটিভ বলে শনাক্ত করা হয়, তারা কোন জেলার বাসিন্দা তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
খুলনা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের তথ্যমতে, দশ জেলায় করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে আটজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে খুলনার তিন, বাগেরহাটের দুই এবং নড়াইল, চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের একজন করে রয়েছেন। যশোরে আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক হলেও এই জেলায় এখনো কোনো করোনা রোগীর মৃত্যু হয়নি।
স্বাস্থ্য বিভাগের হিসেব অনুযায়ী, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্তদের মধ্যে ইতিমধ্যে ১৬২ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। সুস্থ হয়ে ওঠাদের মধ্যে যশোরের ৫৫, ঝিনাইদহের ২৩, চুয়াডাঙ্গার ২১, কুষ্টিয়ার ১৮, মাগুরার ১৭, খুলনার ১৫, বাগেরহাট ও মেহেরপুরের পাঁচজন করে, নড়াইলের দুই, এবং সাতক্ষীরার একজন রয়েছেন।
যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন সুস্থ বলে সনদ দেওয়ার পর এক গর্ভবতী নারীর নমুনা পরীক্ষা করে ফের পজেটিভ রেজাল্ট আসে। করোনা আক্রান্ত অবস্থায় সন্তানের জন্ম দিয়েছেন ওই নারী। যশোর শহরের জেনেসিস হসপিটালে ডা. এমিলির নেতৃত্বাধীন টিম করোনা আক্রান্ত ওই নারীর সিজার করেন।

আরও পড়ুন