ঘুষ চাওয়ায় ওসি সাসপেন্ড

আপডেট: 03:16:50 23/10/2019



img

তারেক মাহমুদ, কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) : মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্তকারী কর্মকর্তাকে ঘুষের প্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগে ঝিনাইদহ সদর থানার সাবেক ওসি মিজানুর রহমান খানকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত (সাসপেন্ড) করা হয়েছে।
প্রায় দুই সপ্তাহ আগে ওসিকে বরখাস্ত করা হলেও বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে আজ মঙ্গলবার। এর আগের দিন সোমবার মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় ঝিনাইদহ সদর থানার হলিধানী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রশিদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এসময় একই অপরাধে তার সহযোগী সাহেব আলীকেও গ্রেফতার করা হয়। এরপরই ওসি মিজানুর রহমানের বরখাস্তের বিষয়টি সামনে আসে।
অভিযোগ করা হয়েছে, গ্রেফতার হওয়া আব্দুর রশিদকে বাঁচাতে ঘুষের প্রস্তাব করেছিলেন ওসি। সাবেক এই ওসি মিজানুর রহমান বর্তমানে সিলেট রেঞ্জ ডিআইজির কার্যালয়ে সংযুক্ত রযেছেন।
ঝিনাইদহের হলিধানী এলাকার মুক্তিযোদ্ধা আশির উদ্দীনের মৃত্যুর পর তার ভাতিজা আনোয়ার হোসেন মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী ট্রাইব্যুনালে স্থানীয় ছয় ‘রাজাকারের’ নামে অভিযোগ করেন। চলতি বছরের শুরুতে মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী ট্রাইব্যুনাল থেকে তদন্তে মুক্তিযোদ্ধাদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেওয়া ও স্বজনদের হত্যার প্রাথমিক প্রমাণ সংগ্রহ করে।
সে সময় আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ মিয়ার পক্ষে তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. আব্দুর রাজ্জাক খানকে ঘুষের প্রস্তাব করেন ঝিনাইদহের তৎকালীন ওসি মিজানুর। এ ঘটনায় আব্দুর রাজ্জাক খান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জন-নিরাপত্তা বিভাগের সচিব বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। তদন্ত শেষে প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় গত ৭ অক্টোবর সদর থানার তৎকালীন ওসি মিজানুর রহমান খানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।
ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান ওসিকে সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আরও পড়ুন