চৌগাছায় বাঁওড়ের গাছ বিক্রি করছেন ম্যানেজার

আপডেট: 07:24:21 10/10/2020



img

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : চৌগাছার বেড়গোবিন্দপুর বাঁওড়ের ম্যানেজার ইমদাদ হোসেন সরকারি বাঁওড় ও বাওড়ের অন্তর্ভুক্ত বিলের মূল্যবান গাছ টেন্ডার বা নিলাম ছাড়াই অবৈধভাবে বিক্রি করে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
শনিবার সকালে দুই লক্ষাধিক টাকা দামের গাছ আলমসাধুতে (স্থানীয়ভাবে নির্মিত ইঞ্জিনচালিত যানবাহন) করে চৌগাছা শহরের কুঠিপাড়া কাঠের মিলে নেন।
বাঁওড়ের পাশের গ্রামের বাসিন্দারা বলছেন, শনিবার যে গাছ মিলে বিক্রি করেছেন ম্যানেজার, তার দাম দুই-তিন লাখ টাকা হবে। তাদের অভিযোগ, বাঁওড় এবং বাঁওড়ে বিলের পাড়ে যেসব মূল্যবান গাছ ছিল বিগত কয়েক বছরে বিভিন্ন অজুহাতে ম্যানেজার সেগুলোর প্রায় সব কেটে বিক্রি করে দিয়েছেন। যার দাম ২০ লাখ টাকার বেশি হবে বলে তাদের ধারণা।
শনিবার সকালে গাছ করাতকলে নেওয়ার সময় গাড়ি (আলমসাধু) চালক বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের শরিফুল ইসলাম জানান, বাঁওড় অফিস থেকে গাছ নিয়ে তিনি মিলে যাচ্ছেন। এটি দ্বিতীয় গাড়ি। এর আগে একগাড়ি মিলে রেখে এসেছেন।
গাছ কে বিক্রি করলো- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বাঁওড়ের ম্যানেজার (নাম বলতে পারবো না) আমাকে কাঠ মিলে নেওয়ার জন্য গাড়িতে তুলে দিয়েছেন।’
এ বিষয়ে বাঁওড় ম্যানেজার ইমদাদ হোসেন বলেন, কোনো গাছ টেন্ডার বা নিলাম করা হয়নি। আম্পানে (গত ২০ মে এ অঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সামুদ্রিক সাইক্লোন) পড়ে যাওয়া গাছ রয়েছে।
তার দাবি, সাইক্লোনে পড়ে যাওয়া গাছগুলো বাঁওড়ের স্টোরে রয়েছে। তাহলে স মিলে যে গাছ নেওয়া হচ্ছে, সেগুলো কোথাকার?- এমন প্রশ্নের কোনো জবাব দিতে পারেননি ম্যানেজার।
অনেক আগে থেকেই চৌগাছার সরকারি এ বাঁওড়টির ম্যানেজার ইমদাদুল হকের বিরুদ্ধে মাছ চুরি করে বিক্রি করে দেওয়াসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে।

আরও পড়ুন