ঝিনাইদহে স্কুলে নিয়োগ-বাণিজ্যের অভিযোগ

আপডেট: 11:14:49 12/10/2021



img

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ধোপাবিলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণির তিনজন কর্মচারী নিয়োগকে কেন্দ্র করে ঘুষ-বাণিজ্য ও দুর্নীতিচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।
এই অভিযোগে নিয়োগ স্থগিতের জন্য জেলা প্রশাসক, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, ডিজির প্রতিনিধি, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর আবেদন করেছেন কুমড়াবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ধোপাবিলা গ্রামের বাসিন্দা আশরাফুল ইসলাম এবং ইউপি সদস্য ও বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সদস্য জামাল হোসেন।
লিখিত অভিযোগে বলা হয়, অভিভাবক ও গ্রামবাসীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে। ‘নিয়োগ বাণিজ্যের’ প্রতিবাদ করায় জামাল হোসেনকে মারধর করা হয়েছে।
তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, সরকারি বিধি মোতাবেক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে। আবেদনকারীদের মধ্যে থেকে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের নিয়োগ দেওয়া হবে।
কুমড়াবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম জানান, চলতি বছরের ১৮ অক্টোবর বর্তমান ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা। যশোর শিক্ষাবোর্ডের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৮০ দিন আগে এডহক কমিটি গঠন প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে। কিন্তু কমিটি গঠন প্রক্রিয়া শুরু না করে, ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ ২৮ দিন থাকা অবস্থায় ধোপাবিলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি, প্রধান শিক্ষকসহ কয়েকজন সদস্যের যোগসাজশে অনিয়ম ও দুর্নীতি করার লক্ষে চলতি বছরের ২০ সেপ্টেম্বর পত্রিকায় চতুর্থ শ্রেণির তিনজন কর্মচারী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। একজন করে নিরাপত্তাকর্মী, পরিচ্ছন্নতা কর্মী এবং আয়া নিয়োগ করা হবে।
অভিযোগ প্রসঙ্গে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) তসলিমা খাতুন বলেন, ‘নিয়োগ সম্পর্কে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ডিজির প্রতিনিধিকে বলা হয়েছে।’
এবিষয়ে ডিজির প্রতিনিধি ও ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা লক্ষ্মীরানী পোদ্দার বলেন, ‘আমি একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।’

আরও পড়ুন