দক্ষিণে আওয়ামী লীগের সম্মেলনের দিনক্ষণ

আপডেট: 02:23:49 25/09/2019



img

খুলনা অফিস : আওয়ামী লীগের খুলনা মহানগর সম্মেলন ৭ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। জেলার সম্মেলন ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করা হবে। বিভাগের অন্যান্য জেলা, উপজেলাগুলোতেও সম্মেলনের দিনক্ষণ নির্ধারণ ও ডেডলাইন ঘোষণা করা হয়।
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি আয়োজিত খুলনা বিভাগীয় প্রতিনিধি সম্মেলনে এ কথা জানান দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান।
মঙ্গলবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মহানগরীর হোটেল সিটি ইনে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
এসময় সভাপতির বক্তৃতায় তিনি বলেন, যারা সমাজ ও রাষ্ট্রবিরোধী কর্মাকাণ্ডে জড়িত তাদের আওয়ামী লীগে স্থান হবে না। হাইব্রিড বা অনুপ্রবেশকারীরাই অবৈধ কাজের সঙ্গে জড়িত থাকে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অর্থের পেছনে ছোটে না। যারা ক্যাসিনো বা জুয়া, মাদকের সাথে জড়িত তারা সবাই হাইব্রিড ও অনুপ্রবেশকারী। আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীরা বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা সর্বোপরি দেশের কথা ভেবে রাজনীতি করে। তারা কখনো মানুষের ক্ষতি করে রাজনীতি করে না। ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে।
তিনি আরো বলেন, দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন হাইব্রিড, অনুপ্রবেশকারী এবং দলের মধ্যে বিশৃংখলাকারীদের তালিকা করতে। সে অনুসারে দলের ভেতরে এবং বাইরে মিলে তালিকা করা হচ্ছে। তাদের কোনো অবস্থাতেই দলের সাধারণ সদস্য টিকিটসহ কোনো স্থান দেওয়া হবে না। এব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপনের পরিচালনায় প্রতিনিধি সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় শ্রমবিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, নির্বাহী সদস্য এস এম কামাল হোসেন, পারভীন জামান কল্পনা, অ্যাডভোকেট আমিরুল আলম মিলন, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন দোদুল, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখর, বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শেখ কামরুজ্জামান টুকু, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুজিত অধিকারী, সংসদ সদস্য কবিরুজ্জামান মুক্তিসহ দশ জেলার সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং সংসদ সদস্যরা, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক জোবায়ের আহমেদ খান জবা, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক হাফেজ মো. শামীম, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ উপ-প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক মো. মফিদুল ইসলাম টুটুল উপস্থিত ছিলেন।
প্রতিনিধি সম্মেলনে খুলনা মহানগরের সকল ওয়ার্ডের সম্মেলন ৩০ নভেম্বরের মধ্যে এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ৭ ডিসেম্বর ও সকল জেলায় ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করার জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়। এরমধ্যে বাগেরহাট সদর উপজেলা ৪ নভেম্বর, বাগেরহাট পৌরসভা ৭ নভেম্বর, কচুয়া ১০ নভেম্বর, চিতলমারী ৫ নভেম্বর, মোল্লাহাট ৯ নভেম্বর, ফকিরহাট ৬ নভেম্বর, রামপাল ২২ নভেম্বর, মোংলা ২৩ নভেম্বর, মোরেলগঞ্জ ৯ নভেম্বর, শরণখোলা ৮ নভেম্বর, সাতক্ষীরা ও নড়াইল জেলাসহ সকল উপজেলার সম্মেলন নভেম্বরের মধ্যে, মাগুরা পৌরসভায় ৩০ অক্টোবর, সদর উপজেলা ৩১ অক্টোবর, মোহাম্মদপুর ১ নভেম্বর, শালিখা ১২ নভেম্বর, মহেশপুর নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে, কালীগঞ্জ ৩০ অক্টোবরে সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত হয়। সর্বোপরি আগামী ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে সব উপজেলা ও জেলার সম্মেলন করতে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্যদের প্রতি নির্দেশ দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন