দলে মাদক ব্যবসায়ী সন্ত্রাসীদের দরকার নেই : কাদের

আপডেট: 05:05:50 27/11/2019



img
img
img

স্টাফ রিপোর্টার : শিগগির জেলা-উপজেলায় সন্ত্রাসবিরোধী অ্যাকশন শুরু হবে জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দল ভারি করার জন্য খারাপ লোকদের দলে টানবেন না। সুবিধাবাদী, মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসীদের কোনো দরকার নেই। শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগে কোনো দুর্নীতিবাজের ঠাঁই হবে না।’
আজ দুপুরে যশোর কেন্দ্রীয় ঈদগাহে জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছিলেন তিনি।
বক্তব্যে নতুন কমিটির বিষয়ে কাদের বলেন, নতুন কমিটি যেন পকেট কমিটি না হয়। আওয়ামী লীগ ত্যাগী, আদর্শবান কর্মীদের সংগঠন।
হলি আর্টিজান মামলার রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বহুল প্রতীক্ষিত এই মামলার রায়ে বিচারব্যবস্থার প্রতি মানুষের আস্থা আরো বাড়াবে। এই রায় জঙ্গিবাদী শক্তি এবং জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকদের প্রতি অশনিসংকেত। আর দেশের মানুষের ভবিষ্যৎ নিরাপদ ও স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা কায়েমে এ রায় ভূমিকা রাখবে।
দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে কাদের বলেন, ‘শেখ হাসিনা ঘর থেকেই শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। ঘরকে শাস্তি দিয়ে পরকে শেখাবো- এটাই হচ্ছে শেখ হাসিনার নীতি।’
সম্মেলনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, ‘‘অশুভ শক্তি বিএনপি-জামাতের তৎপরতা এখনো আছে। বিএনপি মহাসচিব কয়েকদিন আগে বললেন, ‘আমরা সভা-সমাবেশের জন্য আর কারো কাছ থেকে অনুমতি চাইব না।’ আমি অবাক হয়ে গেলাম, যারা মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে, যারা আইনের শাসনের কথা বলে, তারা কী করে এমন কথা বলে?’’
তিনি বলেন, সভা সমাবেশ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেওয়া বিধান। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম সাহেব এই বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে প্রমাণ করেছেন বিএনপি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। বিএনপি সন্ত্রাসী দল, সেটাই তিনি প্রমাণ করেছেন।
তিনি বলেন, গতকাল খালেদা জিয়ার মুক্তির নাম করে রাজপথে নেমে তারা গাড়ি ভাঙচুর করেছে। বিএনপি এই কর্মকাণ্ড দিয়ে আবার প্রমাণ করেছে তারা সন্ত্রাসী দল।
হানিফ জোর দিয়ে বলেন, বিএনপি নেত্রীর মুক্তি আন্দোলনের মাধ্যমে হবে না। আইনি প্রক্তিয়ার মাধ্যমে বেগম জিয়ার মুক্তির পথ খুঁজতে বিএনপি নেতাকর্মীদের পরামর্শ দেন তিনি।
হানিফ হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘আইনি প্রক্রিয়া বাদে রাজপথে নেমে যদি ভাঙচুর বা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করেন তবে স্মরণ রাখতে হবে, অতীতে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা দেশবাসীকে নিয়ে আপনাদের সন্ত্রাসী তৎপরতা যেমন কঠোরভাবে দমন করেছে আগামীতেও যে কোনো সন্ত্রাসী তৎপরতা বন্ধ করতে নেতা কর্মীরা প্রস্তুত আছে।’
যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনের সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধনী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য পীযূষকান্তি ভট্টাচার্য, কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক আব্দুর রহমান, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, সদস্য এসএম কামাল হোসেন, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্যসহ যশোরের ছয় আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগ নেতারা।
সমাবেশ শেষে দ্বিতীয় অধিবেশনে ওবায়দুল কাদের শহিদুল ইসলাম মিলনকে সভাপতি ও শাহীন চাকলাদারকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা কমিটির কয়েক নেতার নাম ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন