দুটি সন্তানের জন্য বাঁচতে চান ছালেহা

আপডেট: 07:29:31 13/08/2020



img

স্টাফ রিপোর্টার : শরীরের ৬০ ভাগ পুড়ে যাওয়া ছালেহা বেগম (৩০) টাকার অভাবে চিকিৎসা নিতে পারছেন।
গৃহপরিচারিকার কাজ করা এই নারী এখন অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন ঝিকরগাছার মল্লিকপুর রেললাইনের ধারে বস্তিতে। জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসা না করাতে পারলে তাকে বাঁচানো যাবে না বলে চিকিৎসকরা জানিয়ে দিয়েছেন।
পরিপূর্ণ চিকিৎসার জন্য ছালেহার খরচ হবে দুই লাখ টাকার বেশি। কিন্তু কে দেবে এতো টাকা?
ছালেহা বেগম ঝিকরগাছা উপজেলার মল্লিকপুর গ্রামের মনিরুল ইসলামের স্ত্রী। তাদের কোনো জমি-জায়গা নেই। রেললাইনের ধারে সরকারি খাসজমিতে গড়া ওঠা বস্তিতে বসবাস ছিল স্বামী আর দুই সন্তান নিয়ে। কিন্তু চার বছর আগে স্বামী মনিরুল ইসলাম কাউকে না বলে বাড়ি থেকে চলে যান। তিনি কোথায় কীভাবে আছেন, তা জানেন না পরিবারের কেউ।
স্বামী নিখোঁজ হওয়ার পর ছালেহা বেগমের জীবনে নেমে আসে ঘোর অমানিশা। ১১ বছরের ছেলে আর নয় বছরের মেয়েকে মানুষের মতো মানুষ করার স্বপ্ন ভেঙে গেছে। অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করে কোনো রকম জীবন চালাচ্ছিলেন।
এরই মাঝে দুর্ঘটনা ঘটে। আগুনে পুড়ে যায় তার শরীরের প্রায় ৬০ শতাংশ। জীবন-মরণ মাঝখানে থাকা ছালেহাকে বাঁচতে হবে তার দুই সন্তানের জন্য।
ছালেহা বলছেন, তিনি বাঁচতে চান। তিনি মারা গেলে তার দুই অবুঝ শিশু পথে নামবে। এখনই তাদের থাকতে হচ্ছে অর্ধাহারে-অনাহারে। তার বিশ্বাস, চিকিৎসা নিয়ে বাঁচতে পারলে ছেলে-মেয়ে দুটো অন্তত শেকড়ছাড়া হবে না।
ভাই মাছবিক্রেতা জাহাঙ্গীর জানান, ছালেহা পেশায় ছিলেন একজন শ্রমিক। মাঝে মধ্যে মানুষের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করতেন। গত ৭ আগস্ট এক প্রতিবেশীর কাছ থেকে চেয়ে আনা রাইচকুকারে বাড়িতে বুটের ডাল সিদ্ধ করছিলেন। ওই সময় হঠাৎ কুকারটি বিস্ফোরি হয়। এতে তার শরীরে আগুন ধরে যায়। ভাগ্যক্রমে তার দুই সন্তান বেঁচে গেলেও সালেহা এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।
স্বজনেরা প্রথমে সালেহাকে ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে রেফার করা হয়। কিন্তু যশোরেও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে ঢাকায় রেফার করেন চিকিৎসকরা। কিন্তু টাকার অভাবে তাকে ঢাকা নিয়ে যেতে পারেননি স্বজনরা। সালেহা এখন মল্লিকপুর রেললাইনের বস্তিতে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন।
খুলনা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, সুস্থ ও স্বাভাবিক হতে ছালেহার স্কিনসার্জারি করতে হবে। এজন্যে দুই লক্ষাধিক টাকার প্রয়োজন।
ছালেহা বেগম বেঁচে থাকার জন্য সমাজের বিত্তশালীদের সহযোগিতা চেয়েছেন। তার চিকিৎসার আর্থিক সহায়তা পাঠানো যাবে বিকাশ (পার্সোনাল) নাম্বার : ০১৯৩৪-৩৪৪২৪০-তে।

আরও পড়ুন