নতুন দল ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী)

আপডেট: 08:26:28 30/11/2019



img

স্টাফ রিপোর্টার : দুই দিনব্যাপী কেন্দ্রীয় সম্মেলন শেষে যশোরের মাটিতে ঘোষণা এলো নয়া বাম দলের।  পার্টির নামকরণ করা হয়েছে ‘বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী)’। 
নতুন এই দলের ১১ সদস্যবিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটিও গঠন করা হয়েছে। এর সভাপতি হয়েছেন নুরুল হাসান এবং সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ইকবাল কবির জাহিদ।
নয়া কমিটির উপদেষ্টা করা হয়েছে ওয়ার্কার্স পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিমল বিশ্বাসকে।   এছাড়া বিকল্প সদস্য ১১ এবং কেন্দ্রীয় সংগঠক করা হয়েছে ছয়জনকে। 
আজ শনিবার সন্ধ্যায় কাউন্সিল শেষে পার্টির নাম ও কমিটি ঘোষণা করা হয়। নবগঠিত দলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পেয়েছেন মনোজ সাহা, জাকির হোসেন হবি, অনিল বিশ্বাস, মোফাজ্জেল হোসেন মঞ্জু, তুষারকান্তি দাশ, সৈয়দ মজনুর রহমান, তপন সাহাচৌধুরী। কেন্দ্রীয় কমিটির আরো দুইজনকে পরে কোঅপ্ট করা হবে।
সম্মেলনে কেন্দ্রীয় কমিটির পাশাপাশি ১১ সদস্যবিশিষ্ট বিকল্প কমিটি এবং ছয় সদস্যবিশিষ্ট সাংগঠনিক কমিটি গঠন করা হয়। বিকল্প সদস্যরা হলেন জিল্লুর রহমান ভিটু, নাজিম উদ্দিন, প্রফেসর ইসরারুল হক, গাজী আব্দুল হামিদ, শামসুর রহমান আক্তার, সিরাজুম মুনির, মুনিউর রহমান জিকো, নওশের আলী এবং কাজী ফিরোজ। এই পদে আরো দুইজনকে পরে কোঅপ্ট করা হবে।
সাংগঠনিক সদস্যরা হলেন শহিদুল এনাম পল্লব, মোজাম্মেল হক, জাহাঙ্গীর আলম সবুজ, হাশেম আলী, আলাউদ্দিন আহাম্মেদ এবং সিরাজ আহমেদ।
‘মতাদর্শগত বিরোধের’ অভিযোগ এনে ভাঙন দেখা দিয়েছিল ক্ষমতাসীন দলের জোটসঙ্গী রাশেদ খান মেননের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টিতে।  আজ যশোরে কেন্দ্রীয় সম্মেলনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে ভেঙে গেল দলটি; যেটি কয়েকটি বাম দলের সমন্বয়ে ‘বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি’ নামে ১৯৯২ সাল থেকে রাজনীতির মাঠে ছিল। এর আগেও অবশ্য তিন দফা ভাঙনের মুখে পড়ে ওয়ার্কার্স পার্টি।
যশোর টাউন হল ময়দানের অস্থায়ী অমল সেন মঞ্চে শুক্রবার পার্টির ‘মতাদর্শ রক্ষা সমন্বয় কমিটি’র সম্মেলন উদ্বোধন করেছিলেন ব্রিটিশ-ভারতের সর্বভারতীয় কৃষাণসভার স্বেচ্ছাসেবক নারায়ণচন্দ্র বসু।  সম্মেলনে সেদিন নতুন উদ্যোগকে অভিনন্দন জানিয়ে বক্তৃতা করেছিলেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ, ঐক্য ন্যাপসহ বামপন্থী কয়েকটি দলের কেন্দ্রীয় নেতারা। 
আজ শুক্রবার দিনব্যাপী কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয় যশোর জেলা শিল্পকলা অ্যাকাডেমি মিলনায়তনে।  অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন নুরুল হাসান।  কাউন্সিলে ২৫ জেলা থেকে ১৩০ জন কাউন্সিলর এবং ২১ জন ডেলিগেট উপস্থিত ছিলেন। 
নতুন পার্টির সভাপতি নুরুল হাসান বলেন, ‘বাম গণতান্ত্রিক ফ্রন্টকে সাথে নিয়ে আমরা কমিউনিস্ট ঐক্য গড়ে তুলতে চাই।  আর সেকারণেই আজকের এই সম্মেলন।  এটি অমল সেনের ওয়ার্কার্স পার্টি, মেনন-বাদশার না।  তারা মার্কসবাদকে পরিত্যাগ করেছে; আমরা মার্কসবাদকে গ্রহণ করেছি।’
নয়া কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির জাহিদ বলেন, ‘ওয়ার্কার্স পার্টির দশম কংগ্রেসে নীতিহীন, পঙ্কিলতা, রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আমাদের বিপ্লবীরা এসেছেন।  তারা সাহসের সঙ্গে তাদের (মেনন-বাদশাদের) নীতিহীন আদর্শ পরিত্যাগ করেছেন।  দেশের কৃষক-শ্রমিক-মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামকে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয় ঘোষণা করেছেন।  ফলে এই সম্মেলন সফল হয়েছে।’

আরও পড়ুন