নষ্টের পথে সুলতানের আটটি চিত্রকর্ম

আপডেট: 08:02:33 23/11/2019



img
img
img

নড়াইল প্রতিনিধি : বরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের নষ্ট হয়ে যাওয়া তিনটি পেইন্টিং রিপিয়ারের জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বাংলাদেশে শিল্পকলা একাডেমির মাধ্যমে ঢাকা থেকে নড়াইলে আসা তিন সদস্যের একটি টিম শুক্রবার (২২ নভেম্বর) সকালে এ তিনটি ছবি ঢাকায় নেয়। ছবি তিনটি হলো ‘জমি কর্ষণ’, ‘ধান মাড়াই’ এবং ‘গ্রাম্য কাজিয়া’। এগুলো চটের ক্যানভাসের ওপর নির্মিত এবং তেল রঙের পেইন্টিং।
সুলতান কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, এস এম সুলতান কমপ্লেক্সে শিল্পীর আঁকা মোট ২২টি ছবি রয়েছে। এগুলো মেরামত এবং উপযুক্ত পরিবেশে স্থাপন করা জরুরি হয়ে পড়েছে। ২০১৬ সালে বাংলাদেশে শিল্পকলা একাডেমি থেকে একজন রেস্টোরার (চিত্রকর্মের চিকিৎসক) এসে শিল্পীর সবচেয়ে বড় এবং বিখ্যাত ৩৮ ফুট লম্বা চিত্রকর্ম ‘সভ্যতার ক্রমবিকাশ’ ছবিটি মেরামতের কাজ শুরু করেন। কিন্তু কাজ আজো শেষ হয়নি। তবে ‘চর দখল’, ‘ধান মাড়াই’, ‘জমি কর্ষণ’, ‘ফসল সংগ্রহ’, ‘মাঠ পরিষ্কার’, ‘কলসি কাঁখে নারী’, ‘কাজিয়া’ এবং ‘মাছ শিকার’ ছবিগুলোও নষ্ট হতে চলেছে। এগুলোও পর্যায়ক্রমে মেরামত জরুরি।
সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, অপরিকল্পিতভাবে গড়ে তোলা গ্যালারি, আবহাওয়া, বদ্ধ অবস্থায় রাখা, অবহেলাসহ বিভিন্ন কারণে ছবিগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং নষ্ট হতে চলেছে।
নড়াইল সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের শিক্ষক চিত্রশিল্পী নিখিলচন্দ্র দাস বলেন, ‘সুলতান কাকুর অনেকগুলো ছবি নষ্ট হবার উপক্রম। আমাদের দাবি, ছবিগুলি যেন দীর্ঘস্থায়ী এবং সঠিকভাবে রিপিয়ার করা হয়।’
ঢাকা থেকে আসা বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা মিউজিয়ামের কিউরেটর আছিয়া খাতুন বলেন, ‘চিত্রশিল্পী সুলতান কমপ্লেক্সের আটটি ছবি নষ্ট হয়ে গেছে। এগুলো ধাপে ধাপে রিপেয়ার করা জরুরি। এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মাধ্যমে প্রথম ধাপে তিনটি ছবি রিপেয়ার করা হবে। এগুলো ঠিক করতে ছয় মাস অথবা এক বছর লাগতে পারে। নড়াইলে ছবি রিপেয়ারের ল্যাবরেটরি নেই। সেজন্য এগুলো ঢাকায় নেওয়া হয়েছে।’
ঢাকা থেকে আসা টিমের বাকি দুই সদস্য হলেন, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির গ্যালারি সুপারভাইজার মিজানুর রহমান এবং রেস্টোরার (চিত্রকর্মের চিকিৎসক) হাসানুর রহমান রিয়াজ।
জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা বলেন, ‘শিল্পী সুলতানের অনেকগুলো ছবি নষ্ট হবার পথে। ছবিগুলি দীর্ঘস্থায়ী এবং সুন্দর করতে শিল্পকলা একাডেমির মাধ্যমে রিপেয়ারের জন্য ঢাকায় নেওয়া হচ্ছে। আশা করছি, খুব দ্রুত এগুলো রিপেয়ার করে আবার সুলতান কমপ্লেক্সে পাঠানো হবে। দর্শনার্থীদের হয়তো সাময়িক সমস্যা হতে পারে।’
প্রায় সমস্ত ছবিই ধাপে ধাপে রিপেয়ার করা হবে। এছাড়া সুলতান কমপ্লেক্সের ছবিগুলো উপযুক্ত পরিবেশে রাখার যাবতীয় ব্যবস্থার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলে জানান জেলা প্রশাসক।