নাজিব রাজাকের ১২ বছর কারাদণ্ড

আপডেট: 06:34:41 28/07/2020



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাককে ১২ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন দেশটির একটি আদালত। রাষ্ট্রীয় বিনিয়োগ তহবিলের (ওয়ানএমডিবি) অর্থ কেলেঙ্কারির প্রথম মামলায় তাকে এই কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়।
আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, কুয়ালালামপুর হাইকোর্টের বিচারক মুহাম্মদ নাজলান মুহাম্মদ ঘাজালি এ রায় ঘোষণা করেছেন। বিচারক বলেন, মামলার ব্যাপারে সমস্ত তথ্য-প্রমাণ বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে পেরেছেন।
আইনজীবী আরো বলেন, আমি অভিযুক্তকে দোষী মনে করি এবং সাতটি অভিযোগে তাকে দোষী সাব্যস্ত করছি। বিশ্বাসভঙ্গ, অর্থপাচার, ক্ষমতার অপব্যবহারসহ সাত ধরনের অভিযোগ আনা হয়েছিল নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে। সব ধারায়ই সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাককে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।
এরপর বিকেলে প্রত্যেকটি অভিযোগের জন্য আলাদাভাবে সাজা ঘোষণা করেন বিচারক।
তহবিলের ৪২ মিলিয়ন রিঙ্গিত অর্থাৎ প্রায় দশ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থ মালয়েশিয়ার তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়েছিল। নাজিব রাজাক ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।
বিচারক মোহামেদ নাজলান মোহামেদ ঘাজালি জানিয়েছেন, সব সাক্ষ্য-প্রমাণ বিবেচনা করে নাজিব রাজাককে মামলায় সন্দেহাতীতভাবে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।
তবে নিজের বিরুদ্ধে সব অভিযোগ অস্বীকার করে নাজিব রাজাক দাবি করেছেন, অর্থনৈতিক বিষয়ক পরামর্শদাতাদের মাধ্যমে, বিশেষ করে ধনকুবের পলাতক ঝো লোর দ্বারা বিভ্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। ঝো লোর বিরুদ্ধে মালয়েশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে।
সূত্র : বিবিসি, এনটিভি

আরও পড়ুন