নিরাপদ রাখুন ফেসবুক-মেসেঞ্জার

আপডেট: 10:20:13 27/10/2019



img

ফারহানা পারভীন : বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলীয় ভোলার বোরহানউদ্দিন থানা পুলিশ বলছে, ইসলামের নবীকে কটাক্ষ করে দেওয়া কিছু মেসেঞ্জার পোস্টকে কেন্দ্র করে রোববার এক সংঘর্ষে পুলিশের গুলিতে চার ব্যক্তি নিহত হন।
পুলিশ বলেছে, বিপ্লবচন্দ্র বৈদ্য নামে একজনের ফেসবুক আইডি হ্যাক করে নবী মোহাম্মদ (স.)-কে নিয়ে মেসেঞ্জারে পোস্ট দেয় হ্যাকাররা এবং এর সঙ্গে জড়িত দুজনকে তারা আটক করেছে।
এই ঘটনার পর প্রশ্ন উঠছে, কীভাবে সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখা যায়।
আমরা এমন এক সময়ে বাস করছি, যখন ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নেই- এমন একজন মানুষ খুঁজে বের করতে আমাদের যথেষ্ট ঘাম ঝরাতে হবে।
সামাজিক যোগাযোগের এই মাধ্যমটি বাংলাদেশসহ বিশ্বের নানা দেশে জনপ্রিয়।
কিন্তু সোশাল মিডিয়া ব্যবহারের ফলে যেমন এর উপকারিতা রয়েছে তেমনি অ্যাকাউন্টটি যদি হ্যাক হয়ে যায় তাহলে ভোগান্তির শেষ নেই।
তথ্যপ্রযুক্তি নিয়ে যারা কাজ করেন, তারা কিছু উপায় বলছেন, যাতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম, ইমেইল বা গুগল অ্যাকাউন্ট থেকে তথ্য চুরি যাওয়া বা হ্যাকিং এর শিকার হওয়া থেকে বাঁচা যায়।
তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহারের ক্ষেত্রে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই।

কখন বুঝবেন অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে
কেউ যদি আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে আপনাকে জিম্মি করে আপনার ক্ষতি করতে চায়, তাহলে আপনার অ্যাকাউন্টে আপনি নিজেও পাসওয়ার্ড দিয়েও ঢুকতে পারবেন না। কিন্তু আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে ইমেইল বা পোস্ট যেতে থাকবে।
তখন আপনি বুঝবেন আপনি আপনার অ্যাকাউন্টের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছেন।
আবার এমনও হতে পারে, আপনি আপনার অ্যাকাউন্টে ঢুকতে পারছেন, কিন্তু আপনার নামে আপত্তিকর মেইল বা পোস্ট দেওয়া হচ্ছে, সেক্ষেত্রে আপনি ধরে নিতে পারেন আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে।

তাৎক্ষণিক করণীয়
তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশকে জানান আপনার অ্যাকাউন্টটি হ্যাক হয়েছে। সেক্ষেত্রে জরুরী সেবার যে নম্বর ৯৯৯ রয়েছে, সেখানে জানাতে পারেন।
এছাড়া ঘনিষ্ঠ বন্ধু বা পরিবারের কারো অ্যাকাউন্ট থেকে জানাতে পারেন যে, আপনার অ্যাকাউন্টটি হ্যাক হয়েছে। পরিষ্কার জানিয়ে দেন, আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে যেসব পোস্ট বা ছবি শেয়ার করা হচ্ছে, সেগুলো আপনি করছেন না।

যেভাবে হ্যাক হয়
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এক্ষেত্রে একটা 'প্রোগ্রাম ইঞ্জিনিয়ারিং' ব্যবহার করা হয়।
যেমন, অপরিচিত বা পরিচিত বা কৌতূহলোদ্দীপক ঠিকানা থেকে আপনার কাছে একটা ইমেইল পাঠানো হলো। এটাকে বলে 'ফিশিং' ইমেইল। সেখানে কিছু ছবি বা ফাইল থাকতে পারে বা লিঙ্ক থাকতে পারে। আপনি সেখানে ক্লিক করলে আপনার ডিভাইসে একটা সফটওয়্যার ঢুকে যায় এবং আপনার কার্যক্রমগুলো মনিটর বা পর্যবেক্ষণ করতে থাকে। তখন দূরবর্তী কোনো স্থান থেকে একজন, যে সফটওয়্যারটি নিয়ন্ত্রণ করছে, তার কাছে আপনার তথ্যগুলো চলে যায়।
এভাবে সোশাল মিডিয়ার অ্যাকাউন্ট যেমন হ্যাক করা যায়, তেমনি অন্য ইমেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাক করা যায়।

টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন
ফেসবুক, ইমেইল বা গুগল অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড নির্ধারণ করার জন্য এতোদিন বলা হতো, যত শক্তিশালী বা জটিল বর্ণ, ডিজিট দিয়ে করা যায় ততই নিরাপদ। কিন্তু সে ধারণা এখন পাল্টে গেছে।
সাইবার বিশেষজ্ঞ সুমন আহমেদ সাবির বলছেন, এখন অনেক সফটওয়্যার রয়েছে যেটা দিয়ে পাসওয়ার্ড ভেঙে ফেলা সম্ভব। সেজন্য দুই ধাপে পাসওয়ার্ড ভেরিফাই করা যায়, এমন ব্যবস্থার মধ্যে আসতে হবে।
তিনি বলছিলেন, "যেমন আপনি যদি টু ফ্যাক্টর ফিচার ব্যবহার করেন, সেটা নিরাপদ করবে আপনার অ্যাকাউন্টকে"।
তিনি বিষয়টি ব্যাখ্যা করে বলছিলেন, আপনার অ্যাকাউন্টে যদি অন্য ডিভাইস থেকে কেউ লগইন করার চেষ্টা করে, তাহলে আপনার মোবাইলে বা ইমেইলে একটা কোড নোটিফিকেশন আসবে। তখন আপনি জানতে পারবেন আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করার চেষ্টা করা হচ্ছে।
"আবার আপনি নিজে যদি অন্য ডিভাইস থেকে লগইন করার চেষ্টা করেন, তাহলে আপনি নিজেই চেক করে অনুমোদন দিয়ে অ্যাকাউন্টটি চালু করতে পারেন"।

অপরিচিত ইমেইল, লিংক এড়িয়ে চলা
যদি আপনার ফেসবুকে কোনো লিংক আসে, সেটা মেসেঞ্জারের মাধ্যমেও হতে পারে, সেটা এড়িয়ে চলুন।
মি. সাবির বলছিলেন, আমাদের কৌতূহল একটু কমাতে হবে। যেকোনো লিংক বা ইমেইলে অ্যাটাচমেন্ট থাকলে সেটা ক্লিক করার আগে বা খোলার আগে সচেতন করতে হবে।
যেমন আপনার পরিচিত একজন বন্ধু আপনার কাছে একটা লিংক পাঠালো, যেটা তার স্বভাববিরুদ্ধ হতে পারে। তখন আপনি সেটা তার সঙ্গে কথা না বলে ক্লিক করবেন না। হতে পারে আপনার ওই বন্ধুর অ্যাকাউন্টটি হ্যাক হয়েছে এবং অন্য কেউ সেই লিংকটি পাঠিয়েছে।

এসব লিংক বা ফাইল খোলার ফল
এসব লিংক বা ইমেইলে থাকা অ্যাটাচমেন্টে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ম্যালওয়ার থাকতে পারে, যেটা আপনার ডিভাইসে ঢুকে তথ্য চুরি করতে পারে।
তবে আপনি যদি কোনো ইমেইল খুলে কী লেখা আছে, সেটা পড়তে থাকেন অ্যাটাচমেন্ট ক্লিক না করেন, সেক্ষেত্রে এই ম্যালওয়ারটি আপনার ল্যাপটপ, কম্পিউটার বা মোবাইলে সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা থাকবে না।

সফটওয়্যার ও অ্যাপ ব্যবহারে সাবধানতা
যেকোনো ধরনের সফটওয়্যার যে কোনো ডিভাইসে ইন্সটল করার ক্ষেত্রে বিশেষভাবে সতর্ক থাকতে হবে। এক্ষেত্রে পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। সফটওয়্যার এবং অ্যাপগুলো নির্ভরযোগ্য উৎস থেকে ব্যবহার করতে হবে। যেকোনো স্থান থেকে যদি আপনি সফটওয়্যার এবং অ্যাপ ডাউনলোড করেন তাহলে আপনি বিপদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দেবেন নিজেকে।

সেটিংস পরিবর্তন করা
আপনি যেসব ডিভাইস ব্যবহার করেন সেগুলোর সেটিংস অপশনে গিয়ে বেশ কিছু বিষয় নিরাপত্তার জন্য পরিবর্তন করে নিতে পারেন। যেমন, লগইন অ্যালার্ট চালু করুন। লগইন অ্যাপ্রুভাল চালু করুন।
আপনাকে যাতে কোনো ছবি বা পোস্ট কেউ আপনার অনুমতি না নিয়ে ট্যাগ না করতে পারে সেই অপশনটা চালু করুন।
এতে করে অন্যের কাজের দায়ভার আপনার নিতে হবে না। আর আপনি নাও চাইতে পারেন কোনো পোস্ট বা ছবি আপনাকে ট্যাগ না করুক ফেসবুকে। আপনি যখন অ্যাপ্রুভ করবেন তখনি কেবল সেটা আপনার টাইমলাইনে আসবে।
সূত্র : বিবিসি