পাঁচ দফা দাবিতে চিনিকল শ্রমিকদের মানববন্ধন

আপডেট: 09:52:15 28/11/2020



img

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : চিনিকল বন্ধের সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে পাঁচ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে চুয়াডাঙ্গা কেরু এ্যান্ড কোম্পানি চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারি ফেডারেশন ও আখচাষী ফেডারেশনের যৌথ উদ্যোগে দর্শনায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
শনিবার (২৮ নভেম্বর) বেলা ১১ট থেকে ১২টা পর্যন্ত এ কর্মসূচি পালিত হয়। এতে চিনিকল শ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।
চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি মাসুদুর রহমানের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সিপিবির চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট শহিদুল ইসলাম, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মজনুর রহমান, জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক মাহফুজুর রহমান মঞ্জু, দামুড়হুদা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলী মুনছুর বাবু, দর্শনা পৌরসভার মেয়র মতিয়ার রহমান, কেরু এ্যান্ড কোস্পানি চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি ও বাংলাদেশ চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের সহসাধারণ সম্পাদক তৈয়ব আলী, আখচাষী ফেডারেশনের সভাপতি আব্দুল হান্নান ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারী বক্তব্য রাখেন।
সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন, চুয়াডাঙ্গা চেম্বার এ্যান্ড কমার্সের পরিচালক হারুন অর রশিদ, আখচাষী ফেডারেশনের উপদেষ্টা আকমত আলী, দর্শনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আওয়াল হোসেন, দর্শনা গণউন্নয়ন গ্রন্থাগারের পরিচালক আবু সুফিয়ান, ওয়েভ ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক জহির রায়হান, দর্শনা অনির্বাণ থিয়েটারের সভাপতি ফজুলুল হক, কেরু এ্যান্ড কোস্পানি চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাবেক সহ-সভাপতি ফারুক আহমেদ, ও সহ-সাধারণ সম্পাদক খবির উদ্দিন, কেরু এ্যান্ড কোস্পানি চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সদস্য হাফিজ আহমেদ, শ্রমিক নেতা ফিরোজ আহম্মেদ সবুজ ও মনিরুল ইসলাম প্রিন্স।
বক্তারা বলেন, চিনিকলে নিয়োজিত শ্রমিক-কর্মচারীদের ৫-৬ মাসের বকেয়া বেতনসহ সকল পাওয়নাদি এবং অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক-কর্মচারীদের গ্রাচ্যুইটির টাকা পরিশোধ, চিনিকল বন্ধের প্রক্রিয়া বাতিল, আসন্ন মাড়াই মৌসুম (২০২০-২০২১) পূর্বে যাবতীয় মালামাল সরবরাহ, আখ উৎপাদনের স্বার্থে সার, বীজ ও কীটনাশকসহ জরুরি উপকরণসমূহ সরবরাহ এবং আখচাষীদের আখের বকেয়া মূল্য পরিশোধের করতে হবে। তারা আরো বলেন, চিনিকলগুলো বন্ধ করা হলে ক্রেতা পর্যায়ে প্রতি কেজি চিনি ৩০০ টাকা দরে কিনতে হবে। এজন্য চিনিকল সরকারি তত্ত্বাবধানে পরিচালনার জোর দাবি জানান নেতৃবৃন্দ।

আরও পড়ুন