পাইকগাছায় কৃষি কলেজ হচ্ছে, বরাদ্দ ২৬২ কোটি

আপডেট: 09:48:39 11/07/2017



img

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি : অবশেষে পাইকগাছায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত কৃষি কলেজ স্থাপন প্রকল্প একনেকে অনুমোদন হয়েছে।
মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় কৃষি কলেজ স্থাপন প্রকল্পে অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য প্রায় ২৬২ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বলে স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. নূরুল হক নিশ্চিত করেছেন।
এর আগে পরিকল্পনা কমিশন সদস্যের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছিল কৃষি কলেজ স্থাপন প্রকল্পের কার্যক্রম। প্রকল্পটি আজ একনেকে অনুমোদন হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পরিকল্পনামন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তাদের অভিনন্দন জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১০ সালের ২৩ জুলাই কয়রার এক জনসভায় পাইকগাছা উপজেলায় একটি কৃষি কলেজ স্থাপনের ঘোষণা দেন। প্রধানমন্ত্রীর এমন ঘোষণায় কৃষিভিত্তিক লেখাপড়ায় আগ্রহ বাড়ে এলাকার ছেলে মেয়েদের মধ্যে। এই প্রতিশ্র“তির তিন বছরের মধ্যে শুরু হয় কৃষি কলেজ স্থাপন প্রকল্পের কার্যক্রম। ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসে প্রকল্পটি পাশ হয় একনেকে। বরাদ্দ দেওয়া হয় অর্থ। উপজেলার লস্কর ইউনিয়নের পাইকগাছা-কয়রা সড়কের পাশেই চকবগুড়া মৌজায় অধিগ্রহণ করা হয় ২৫ একর জমি। কিন্তু মূল অবকাঠামোগত কাজ শুরুর আগেই ২০১৬ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর পরিকল্পনা কমিশনের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা পরিদর্শন করেন প্রকল্প এলাকা। তিনি রিপোর্ট দেন, ‘অধিগ্রহণ করা এলাকা কৃষি কলেজ স্থাপনের জন্য অনুপোযোগী’। এই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বন্ধ হয়ে যায় প্রকল্পের কার্যক্রম। এতে চরম হতাশ হয়ে পড়েন এলাকার সর্বস্তরের মানুষ।
তারা কৃষি কলেজ স্থাপনের জন্য আন্দোলনে নামেন। স্থানীয় সাংবাদিককরা কৃষি কলেজ প্রকল্পের পক্ষে গণমাধ্যমে রিপোর্ট করেন। পরে কৃষি কলেজ প্রকল্পের কাজ শুরু করার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. নূরুল হক প্রধানমন্ত্রী ও পরিকল্পনামন্ত্রী বরাবর ডিও লেটার দেন। পরিকল্পনামন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তিনি বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার কথাও বলেন।
জানতে চাইলে সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. নূরুল হক বলেন, ‘কৃষি কলেজ স্থাপন প্রকল্পটি প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত ছিল। মঙ্গলবার একনেকের সভায় প্রকল্পটি অনুমোদিত হয়েছে। প্রকল্পের অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য প্রায় ২৬২ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন