ফোন হ্যাক নিয়ে বিশ্বজুড়ে হইচই, আপনি কি নিরাপদ?

আপডেট: 03:26:43 20/07/2021



img

মোহাম্মদ আবুল হোসেন : পেগাসাস ব্যবহার করে ফোন হ্যাকের কাহিনি প্রকাশ হওয়ার পর অনেকের মধ্যেই আতঙ্ক। আতঙ্ক এই জন্য যে, যদি ফাঁস হওয়া ৫০ হাজার ফোনের মধ্যে নিজের ফোন নম্বরটি থাকে! যদি কোনো অকথা বা বন্ধুদের সঙ্গে ঠাট্টার ছলে বলা কথা ফাঁস হয়ে যায়! যদি ফান করে কথা বলতে গিয়ে এমন কথা কেউ বলে ফেলেন, যা রাষ্ট্রদ্রোহ পর্যায়ে যায়!
দৃশ্যত ইসরাইলে তৈরি এনএসও গ্রুপের তৈরি হ্যাকিং বিষয়ক সফটওয়্যার পেগাসাস ব্যবহার করা হয়েছে বিরোধী রাজনীতিক, কূটনীতিক, সাংবাদিক, অধিকারকর্মীদের বিরুদ্ধে। দেশে দেশে কর্তৃত্ববাদী সরকার বা তার এজেন্ট এই কাজ করেছে বলে রিপোর্ট পাওয়া যাচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো সাধারণ নাগরিকের বিরুদ্ধে এমন হ্যাকের তথ্য পাওয়া যায়নি। ফলে একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে যে কেউ নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন। তা সত্বেও সতর্ক থাকা ভালো। আপনার ফোনও হ্যাক করে বসতে পারে কেউ। তা হলে আপনার ফোনের ফটো গ্যালারি, কল তালিকা, মেসেজ, ফোনের কথোপকথন অন্যরা ফাঁস করে আপনাকে বিপদে ফেলতে পারে অথবা ব্ল্যাকমেইল করতে পারে।
তাই সতর্কতা অবলম্বন জরুরি। এ বিষয়ে কয়েকটি টিপস- যা দেখে বোঝা সম্ভব আপনার ফোন হ্যাক হয়েছে:

১. সাধারণ সময়ের চেয়ে যদি আপনার ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্র্রুত ফুরিয়ে যায়, তাহলে হ্যাকিংয়ের কারণে এটা হতে পারে। এক্ষেত্রে ম্যালওয়্যার বা জালিয়াতি করার মতো অ্যাপসের কোড আপনার ফোনে ব্যবহার করা হয়ে থাকতে পারে, যা অতিরিক্ত চার্জ শেষ করে দিচ্ছে। তবে চার্জ অতিদ্রুত ফুরিয়ে যাওয়া মানেই যে হ্যাক হয়েছে- এমন নয়। এক্ষেত্রে আপনাকে কিছুটা সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। আগে ব্যাকগ্রাউন্ডে কতগুলো অ্যাপ চালু আছে সেটা চেক করুন। যদি বেশি অ্যাপ চালু থাকে, তাহলে তাতে অতিরিক্ত চার্জ খেয়ে নিতে পারে। এমন হলে প্রথমেই এসব অ্যাপ বন্ধ করতে হবে এবং তারপরে মনিটর বন্ধ করতে হবে।
২. পরীক্ষা করে দেখুন আপনি ডাউনলোড বা ইনস্টল করেননি এমন কোনো অ্যাপ আপনার স্মার্টফোনে আছে কিনা। যদি থাকে, তাহলে আগে নিশ্চিত হোন, এটা আপনি ডাউনলোড করেননি। যদি আপনার অপরিচিত কোনো অ্যাপ থাকে, তাহলে সেটা হ্যাকারদের কাজ হতে পারে। হতে পারে কোনো স্পাইওয়্যার। এগুলোর মাধ্যমে আপনার ফোনে আড়ি পাতা হয়ে থাকতে পারে।
৩. আকস্মিকভাবে আপনার স্মার্টফোন খুব স্লো হয়ে যেতে পারে। এ রকম ঘটলে তাতে অকে বেশি রিসোর্স এবং ব্যাটারির চার্জ ব্যবহার করা হচ্ছে আপনার অজ্ঞাতে। এক্ষেত্রে আপনার অজ্ঞাতেই ব্যাকগ্রাউন্ডে গুপ্তচরের মতো ম্যালওয়্যার সক্রিয় থাকতে পারে।
৪. মোবাইলের ডাটা কি খুব বেশি খাচ্ছে আকস্মিকভাবে? স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় খুব উচ্চ হারে ডাটা প্রয়োজন হতে পারে হঠাৎ করে। আপনার মোবাইলের ব্যাকগ্রাউন্ডে ক্ষতিকারক অ্যাপস অথবা সফটওয়্যার সক্রিয় থাকতে পারে, যা আপনার মোবাইলের অতিরিক্ত ডাটা খেয়ে দিচ্ছে এবং আপনার কর্মকাণ্ডের ওপর নজরদারি করছে।
৫. বলা নেই, কওয়া নেই, হঠাৎ হঠাৎ আপনার স্মার্টফোন উদ্ভট আচরণ করতে পারে। এর কারণ, মোবাইলে যে অ্যাপস আছে তা অপ্রত্যাশিকভাবে ক্র্যাশ করতে পারে বা লোড হতে ব্যর্থ হতে পারে। এ জন্য এমন পাগলাটে আচরণ করে ফোন। কিন্তু শুধু শুধু আপনার ফোনের অ্যাপস ক্র্যাশ করার কথা নয়। এর ওপর বাইরে থেকে কোনো ম্যালওয়্যার কাজ করে থাকতে পারে। ফলে ক্র্যাশ করে থাকতে পারে। আর তা হলে আপনি হ্যাকারের শিকারে পরিণত হয়ে থাকতে পারেন।
৬. অজানা, অচেনা পপ-আপ দেখা দিতে পারে ফোনে। আপনার স্ত্রিনের সর্বত্র এমন পপ-আপ দেখা দিতে পারে। এডওয়্যারের কারণে এটা হতে পারে। এটা এক ধরনের ক্ষতিকারক সফটওয়্যার। যা বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আপনার ফোন হ্যাক করতে পারে।
৭. আপনার ফটো গ্যালারি এবং ভিডিও গ্যালারি চেক করুন। কী দেখতে পাচ্ছেন? অচেনা, অজানা মানুষের ছবি বা ভিডিও, যা আপনি তোলেননি কখনো? যদি এমন কোনো ছবি বা ভিডিও দেখেন তাহলে মনে রাখবেন, আপনার ক্যামেরার নিয়ন্ত্রণ অন্য কেউ নিয়ে থাকতে পারে। অর্থাৎ আপনি হ্যাকারের শিকারে পরিণত হয়ে থাকতে পারেন।
৮. যদি আপনি দেখেন যে, নিজে অন করেননি, অথচ আপনার মোবাইলের ফ্লাশ লাইট একা একাই জ্বলে আছে, তাহলে হতে পারে আপনি অন্যের শিকারে পরিণত হয়ে থাকতে পারেন। অর্থাৎ দূর থেকে কেউ আপনার ফোনের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।
৯. হ্যাক হলে আপনার ফোন মাত্রার চেয়ে অতিরিক্ত গরম হতে পারে। আপনি ব্যবহার করছেন না, তারপরও যদি আপনার ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে ওঠে, তাহলে আপনি হ্যাকারের কবলে পড়ে থাকতে পারেন।
১০. টেক্সট এবং কল লিস্ট পরীক্ষা করুন। এতে যদি আপনি পাঠাননি অথবা কল করেননি- এমন কোনো লক্ষণ দেখেন তাহলে তা অস্বাভাবিক। এতে অস্বাভাবিক কিছু ক্যারেক্টার সেখানে থাকতে পারে। এটাও হতে পারে ফোন হ্যাকের আরেকটি লক্ষণ।

এখন স্মার্টফোনের যুগ। মানুষ তার সমস্ত কাজের জন্য নির্ভর করে এর ওপর। স্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথন, প্রেমিক-প্রেমিকার কথোপকথন, রাজনীতিকের রাজনৈতিক কৌশল- এসবের বেশিরভাগই ফোননির্ভর। আপনার গতিবিধি, আপনার সম্পর্কে সব তথ্য হাতিয়ে নিতে হ্যাক করা হতে পারে আপনার ফোন। তাই যতটা সম্ভব, সতর্ক থাকার চেষ্টা করুন।
সূত্র: মানবজমিন