বাঘারপাড়ায় সাত হাজার কেজি ভেজাল গুড় ধ্বংস

আপডেট: 09:41:56 20/02/2020



img

চন্দন দাস, বাঘারপাড়া (যশোর) : বাঘারপাড়ায় ভেজাল গুড়ের কারখানা গুঁড়িয়ে দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানকালে দুই লাখ টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
বৃহস্পতিবার বিকেলে এ অভিযান পরিচালনা করেন বাঘারপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া আফরোজ।
আদালতের কাছে খবর ছিল, উপজেলার নারিকেলবাড়িয়া কুণ্ডুপাড়ার হারাধন কুণ্ডু নামে এক ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে ভেজাল গুড়ের ব্যবসা করে আসছেন। অভিযান পরিচালনার সময় ওই কারখানার মালিক পলাতক ছিলেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের নাজির মাসুদ হোসেন জানান, দীর্ঘদিন ধরে নারিকেলবাড়িয়া গ্রামের হারাধন কুণ্ডু নিজ বাড়ির পাশে খেজুরগুড়ের কারখানা চালাচ্ছিলেন। সেখানে চিনি, বিভিন্ন প্রকার মেডিসিন ও ফ্লেভার দিয়ে গুড় তৈরি করে যশোরসহ বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করার খবর পেয়ে আজকের অভিযানটি চালানো হয়। এ সময় গুড় তৈরির জন্য রাখা বিপুল পরিমাণ চিনি, ব্যবহারের খালি বস্তা, পাউডার-জাতীয় বিভিন্ন কেমিক্যাল, রঙ ও ফ্লেভার, গুড় তৈরির ব্যারেলের মধ্যে পলিথিন, চাঁড়াসহ ভেজাল তেল-ময়লা পাওয়া যায়। ভেজাল গুড়ের এই কারখানায় ২০ জন শ্রমিক পাঁচটি চুলায় গুড় তৈরি করে থাকেন। প্রতিদিন কয়েকশ’ ভাড় ভেজাল গুড় তৈরি হয় এই কারখানায়।
বাঘারপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া আফরোজ বলেন, ‘সাত হাজার কেজি ভেজাল গুড় ধ্বংস করা হয়েছে। এ সময় কারখানার মালিককে দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। কারখানার মালিক হারাধন কুণ্ডু পলাতক থাকায় ম্যানেজার প্রদীপকুমারকে আটক করা হয়। তবে জরিমানার টাকা পরিশোধ করায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে কারখানাটি।

আরও পড়ুন