বেতন কম, সংসার চলছে না প্রধানমন্ত্রীর

আপডেট: 01:13:48 20/10/2020



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : বরিস জনসন মনে করেন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তার বেতন খুব কম। এই বেতনে তাকে সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হয়। অথচ গত বছর জুলাইয়ে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার আগে তিনি বর্তমান উপার্জনের চেয়ে অনেক বেশি আয় করতেন। তাই তিনি আগামী বসন্তে পদত্যাগ করার কথা ভাবছেন বলে দাবি করেছেন তার দল কনজার্ভেটিভ পার্টির কিছু এমপি।
খবরে বলা হয়েছে, জনসন তার সহকর্মীদের কাছে অভিযোগ করেছেন, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তার বার্ষিক আয় এক লাখ ৫০ হাজার ৪০২ পাউন্ড। অথচ গত বছর প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে তিনি দ্য টেলিগ্রাফ পত্রিকায় কলাম লিখতেন। সেমিনারে বক্তব্য রাখতেন।
এসব করে তিনি মাসে আয় করতেন ২৩ হাজার পাউন্ড। এমনকি এক মাসে তিনি দুটি সেমিনারে বক্তব্য দিয়ে আয় করেছিলেন এক লাখ ৬০ হাজার পাউন্ড।
হোয়াইট হলের সূত্রগুলো মিডিয়াকে বলেছেন, আগামী গ্রীষ্মে পদত্যাগ করতে চান বরিস জনসন। এ জন্য তিনি আর ছয় মাস ক্ষমতায় থাকবেন, যাতে ব্রেক্সিট পুরোপুরি সম্পন্ন করতে পারেন।
একজন এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীকে তার ছয় সন্তানকে বছরে খরচ হিসেবে দিতে হয় ৪২ হাজার ৫০০ পাউন্ড। এই খরচ নিয়ে উদ্বিগ্ন জনসন।
ওই এমপি আরো বলেছেন, বরিস জনসনের ছয়টি সন্তান আছে। তাদের মধ্যে কয়েকজন একেবারে ছোট। তাদেরকে আর্থিক সহায়তা দিতে হয়। অন্যদিকে বিবাহ বিচ্ছেদের চুক্তি অনুযায়ী সাবেক স্ত্রী মেরিনা হুইলারকে একটা বড় অংকের অর্থ দিতে হয়।
তবে বরিস জনসন দীর্ঘদিন প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখছিলেন বলে দাবি করেছেন আরেকজন এমপি।
বরিস জনসন সম্পর্কে এসব কথা বলা হলেও মেট্রোর কাছে এসব কথা প্রত্যাখ্যান করেছে ১০ ডাউনিং স্ট্রিট। তবে তারা আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।
সরকারি কর্মকর্তারা এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রীরা বক্তব্য বিবৃতি দিয়ে এবং নানা অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে প্রচুর অর্থ কামাই করতে পারেন। এমপিরা মনে করেন, জনসন তার পূর্বসূরিদের এমন উপার্জন দেখে নিজে উদগ্রীব হয়ে পড়েছেন। বিশেষ করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে গত বছর পদত্যাগ করার পর বক্তব্য বা লেকচার দিয়ে উপার্জন করছেন দশ লাখ পাউন্ডের বেশি। প্রতিটি লেকচারের জন্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন নিচ্ছেন এক লাখ ২০ হাজার পাউন্ড। কনসালট্যান্সি কর্মকাণ্ড এবং বক্তব্য দেওয়ার মাধ্যমে সাবেক আরেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার বর্তমানে প্রায় দুই কোটি ২০ লাখ পাউন্ডের মালিক।
সূত্র : দ্য মিরর অনলাইন, দ্য মেট্রো, অনলাইন টাইমস নাউ নিউজ, মানবজমিন

আরও পড়ুন