ভারতে সন্ত্রাসী ধরতে গিয়ে আট পুলিশ গুলিতে নিহত

আপডেট: 02:21:22 03/07/2020



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : ভারতের উত্তর প্রদেশের কানপুরে কুখ্যাত এক আসামিকে ধরতে গিয়ে তার সহযোগীদের গুলিতে আট পুলিশ সদস্যের প্রাণ গেছে।
বৃহস্পতিবার গভীর রাতে লখনও থেকে দেড়শ কিলোমিটার দূরে কানপুরের বিকারু গ্রামে এ ঘটনায় পুলিশের গুলিতে আরো তিনজন নিহত হয়েছে বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে।
বিকাশ দুবে নামে কুখ্যাত এক অপরাধীকে গ্রেফতার করতে পুলিশের একটি দল গভীর রাতে বিকারু গ্রামে যায়।
হত্যা, অপহরণসহ বিভিন্ন অভিযোগে ৬০টির বেশি মামলা রয়েছে বিকাশের বিরুদ্ধে। সম্প্রতি আরো একটি হত্যাকাণ্ডে তার নাম এলে তাকে গ্রেফতারে অভিযানে যায় পুলিশ। 
কিন্তু পুলিশ ওই গ্রামে পৌঁছানোর আগেই একটি বুলডোজার ফেলে রেখে রাস্তা বন্ধ করে দেয় বিকাশের সহযোগীরা। গাড়ি থেকে নেমে পুলিশ গ্রামে ঢোকার সময় শুরু হয় এলোপাতাড়ি গুলি।
উত্তর প্রদেশ পুলিশের মহাপরিচালক এইচসি অবস্তীর বরাত দিয়ে খবরের কাগজ জানিয়েছে, বাড়ির ছাদে উঠে তিন দিক থেকে পুলিশের ওপর গুলি চালানো হয়। তাতে একজন ডেপুটি পুলিশ সুপার, তিনজন এসআই, চারজন কনস্টেবল ঘটনাস্থলেই নিহত হন।
আরো চারজন পুলিশ সদস্যকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পরে হাসপাতালে পাঠানো হয়। 
পুলিশের পাল্টা গুলিতে তিন সন্ত্রাসী নিহত হলেও বিকাশকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।
কানপুর পুলিশের প্রধান দিনেশকুমার বলেন, “আমরা তাকে গ্রেফতার করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু সেখানে অ্যাম্বুশ করা হলো। যেভাবে তিন দিক থেকে গুলি করা হলো, সেটা অত্যন্ত সুপরিকল্পিত।”
পরিস্থিতির মোকাবিলায় কনৌজ ও কানপুরের দেহাত থেকে বিপুল সংখ্যক পুলিশ এনে বিকারু গ্রামের আশপাশে মোতায়েন করা হয়েছে।
উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ পুলিশ সদস্যদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। পুলিশের পরিকল্পনা ও প্রস্তুতিতে কোনো ঘাটতি ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখতে বলেছেন।
উত্তর প্রদেশ পুলিশপ্রধানকে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর দপ্তর থেকে।
উত্তরপ্রদেশের অপরাধ জগতে বিকাশ দুবে একটি কুখ্যাত নাম।
২০০১ সালে বিজেপি নেতা সন্তোষ শুক্লাকে তাড়া করে এক থানার ভেতরে গুলি করে হত্যার ঘটনার জন্যও তাকে দায়ী করা হয়, যদিও শেষ পর্যন্ত ওই মামলায় খালাস পেয়ে যান বিকাশ।
সূত্র : এনডিটিভি, বিডিনিউজ

আরও পড়ুন