মধ্যরাতে হাসপাতালে সেহরি পৌঁছে দেয় যুবকরা

আপডেট: 07:44:35 18/04/2021



img

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : মধ্যরাতে খাবারের ব্যাগ হাতে হাসপাতালের প্রতিটি ওয়ার্ডে ঘুরেছেন একদল যুবক। উদ্দেশ্য, রোগীর সঙ্গে থাকা স্বজনদের মাঝে সেহরি বিতরণ করা। বিতরণের উদ্দেশ্যে প্রতিদিন ১০০ মানুষের জন্য খাবার তৈরি করা হয়। বাসাবাড়িতে রান্না খাবার বাক্সে ভরে মানুষের কাছে পৌঁছে দেন তারা। রাত একটা থেকে তিনটা পর্যন্ত চলে তাদের এ কার্যক্রম।
গেল শনিবার রাতে এমন চিত্র দেখা গেছে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সদস্যদের স্বেচ্ছাশ্রমের টাকায় কেনা হয় সদাইপাতি। এরপর ঘরেই রান্না। সাধারণত থাকে খিচুড়ি; কোনোদিন আবার সাদা ভাত, ডাল আর মুরগির গোস্ত। সাথে বোতলজাত খাবার পানি। রমজানের শুরু থেকে প্রতিদিন রাতে একটি অটোরিকশাতে সদস্যরা বেরিয়ে পড়েন খাবার বিতরণ করতে।
হাসপাতালে রোগীর স্বজন রেহানা আক্তার জানান, তিনি মহেশপুর থেকে ছেলেকে নিয়ে হাসপাতালে এসেছেন। রাতে কী খেয়ে রোজা থাকবেন- চিন্তায় ছিলেন। কিন্তু একদল ছেলে এসে তাকে খাবারের প্যাকেট দিয়ে বলেন, ‘এটা আপনার সেহেরির জন্যে।’
সেহরি বিতরণ কার্যক্রমের উদ্যোক্তা, সাংস্কৃতিক সংগঠক শামীম আহম্মেদ টফি জানান, ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি রোগীরা নিয়মিত খাবার পেলেও সঙ্গে থাকা স্বজনরা বাইরে থেকে খাবার নিয়ে যান। গরমের সময় রোগীর স্বজনরা সেহরি খেতে পারেন না। সেহরি ছাড়াই অনেককে রোজা রাখতে হয়। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে গত বছরের মতো এবারও সেহরি বিতরণ করা হচ্ছে।
কর্মসূচির সমন্বয়কারী রেল আব্দুল্লাহ বলেন, ‘করোনাকালে শহরের সকল হোটেল রেস্তোরাঁ বন্ধ থাকে। দূরদূরান্তের রোগীর স্বজনরা সেহরি খেতে পারে না। তাই আমাদের সাধ্যমত সেহরি বিতরণের চেষ্টা করছি।’
ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. হারুন অর রশিদ বলেন, ‘এমন উদ্যোগের কথা শুনে খুবই ভালো লাগছে। এই মহৎ কাজের মাধ্যমে আয়োজকরা আল্লাহ পাকের রহমত পাবেন বলে মনে করি।’

আরও পড়ুন