যশোরে যাদের করোনা শনাক্ত হলো

আপডেট: 11:02:19 06/04/2021



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ৫৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বলে শনাক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৪৩ জন, খুলনা মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ২২ জন এবং বাদবাকিরা যশোর জেনারেল হাসপাতালে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টে শনাক্ত হন।
জেলার সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানিয়েছেন, গেল ২৪ ঘণ্টায় জেলায় আক্রান্তদের মধ্যে যশোর সদরে ৩৬ জন, অভয়নগরে তিনজন, ঝিকরগাছায় দুইজন এবং কেশবপুর ও শার্শা উপজেলায় একজন করে রয়েছেন।
এই সময় জেলায় ১৬৩ জন কোভিড-১৯ টিকা নিয়েছেন। এ নিয়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৬ এপ্রিল পর্যন্ত জেলায় এক লাখ ১৭ হাজার ৯৪০ জন টিকা নিলেন। এখনো জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের হাতে দুই হাজার ৬০ ডোজ টিকা প্রয়োগের অপেক্ষায় আছে।
আজ যাদের শরীরে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব মেলে তাদের মধ্যে দুইজন চিকিৎসক রয়েছেন। এরা হলেন বিএমএ যশোর জেলা শাখার সহ-সভাপতি ও শহরের কারবালা এলাকার বাসিন্দা নাছিম রেজা (৬২) এবং ঝিনাইদহ ম্যাটসের সহকারী পরিচালক ও যশোর শহরের চারখাম্বা এলাকার বাসিন্দা আখতারুজ্জামান (৪৭)।
অন্য আক্রান্তরা হলেন, শহরের ষষ্ঠিতলাপাড়ার ইফাত আরা (৪০), উপশহর এ বøক ৩১২ নম্বর বাড়ির ইফাত আরা (৪০), একই বাড়ির রাবেয়া ইয়াসমিন (৪০), একটি মোবাইল ফোন কোম্পানির অফিসার দিপঙ্কর সরকার (৩৩), শহরের কাজীপাড়া এলাকার মিজানুর রহমান (৭৫), পালবাড়ি এলাকার শামস ইসলাম (১৩), একই এলাকার আম্বিয়া বেগম (২৭), মিশনপাড়া এলাকার মোহাম্মাদ আলী (৫৭), জেল রোড এলাকার একেএম মহিনুর রহমান (৬০), পুলিশ লাইন এলাকার শামছুদ্দিন (৫৯), একই এলাকার আহম্মেদ মুনির ইবনে শামস (৩১), মোল্লাপাড়া এলাকার চায়না খাঁ (৪৫), ধর্মতলা এলাকার রাজন (৫), ফারজানা খাতুন কেয়া (২২), আরাফাত (১৮) ও বিপ্লব (৩৫), বিরামপুর এলাকার কাকন (৩৫), সদরের রাজিব সাহা (২৭), পারভীন (৩৮), বকচর এলাকার ইছাহক (২৬), বাবু (২২), পারুল (২৬), বরকত আল মামুন (৫০), ফরিদা পারভীন (৫৫), খুশি (৩০), উপশহর এলাকার রওশন আলী (৬০), মিজানুর রহমান (৫৫), আলমগীর হোসেন (৫৩), নারায়ণ মল্লিক (৭০), জামাল হোসেন (৫৫), জাহিদ হোসেন (২৫), সদর উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের সোয়েব উদ্দিন (৬১) ও ফাতেমা খাতুন (৫১), ওসমানপুর গ্রামের সিদ্ধার্থ বিশ্বাস (৫০)।
আক্রান্ত হয়েছেন অভয়নগর উপজেলার আমিনুর রশিদ (৫০), পারভীন সুলতানা (৪৫) ও তাহসিন সুলতানা (১৮), ঝিকরগাছার আব্দুল হামিদ (৭৪) ও আরিফুর রহমান (৪৬), কেশবপুরের শুভঙ্কর বিশ্বাস (৩৬) এবং শার্শা উপজেলায় আতিকুর রহমান (২৫)।
আক্রান্তদের বাড়ি লকডাউনসহ বিভিন্ন প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

আরও পড়ুন