লকডাউনের মধ্যেও সীমান্তে অবৈধ পারাপারের চেষ্টা

আপডেট: 09:19:03 05/06/2021



img

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: মহেশপুরের সীমান্তবর্তী বাউলি গ্রামে দ্বিতীয়দিনের মতো চলছে লকডাউন। উপজেলার সীমান্তবর্তী প্রতিটি ইউনিয়নেও চলছে বিশেষ সতর্ক অবস্থা। সকাল থেকেই স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে বিভিন্ন স্থানে টহল দিচ্ছে প্রশাসনের একাধিক টিম। তবুও এ সীমান্ত এলাকায় থেমে নেই অবৈধভাবে মানুষের পারাপার। শুক্রবার গভীররাতে বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাওয়ার সময় দুইজনকে আটক করেছে বিজিবি।
মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীল জানান, বাউলী গ্রামে লকডাউন বাস্তবায়নে সর্বক্ষণিক সেখানে টহল রয়েছে। এছাড়া উপজেলা বিভিন্ন এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের টিম কাজ করছে। প্রাথমিকভাবে সবাইকে স্বাস্থ্যসচেতন করা হচ্ছে। তবে, প্রশাসনের নির্দেশনা মানায় এখনও জরিমানার প্রয়োজন হয়নি।
ঝিনাইদহের সিভির সার্জন ডা. সেলিনা বেগম বলেন, ‘ঝিনাইদহ জেলাকে নিরাপদ রাখার জন্য আমরা চেষ্টা চালাচ্ছি। এ জন্য মহেশপুর উপজেলা ও সীমান্তবর্তী এলাকাগুলো বিশেষ নজরদারিতে রয়েছে।’
এদিকে, শুক্রবার গভীররাতে বাংলাদেশ থেকে ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করায় মহেশপুর উপজেলার সীমান্ত এলাকার গোপালপুর গ্রামের মসজিদের সামনে থেকে এক পুরুষ এবং লেবুতলা গ্রামের প্রাইমারি স্কুল এলাকা থেকে এক নারীকে আটক করে বিজিবি।
তারা হলেন বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার আমবোলা গ্রামের কালাম গাজীর ছেলে রিপন গাজী (২৮) ও যশোর শহরের শংকরপুর এলাকার আব্দুস ছাত্তারের মেয়ে রাবেয়া খাতুন (২১)।
৫৮ বিজিবির সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম খান জানান, শুক্রবার গভীররাতে মহেশপুর সীমান্ত এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে বাংলাদেশ থেকে ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করার অপরাধে এই দুইজনকে আটক করে বিজিবি। পাসপোর্ট অধ্যাদেশ ১৯৭৩ এর ১১(১)(গ) ধারায় ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর থানায় মামলা দিয়ে তাদের সেখানে সোপর্দ করা হয়েছে।
জেলার মহেশপুর সীমান্তবর্তী বাউলি গ্রামে একই পরিবারের ছয়জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ায় গ্রামটিতে সাত দিনের জন্য ‘বিশেষ লকডাউন’ ঘোষণা করা হয়। এছাড়াও সীমান্তবর্তী ছয়টি ইউনিয়নে করোনারোধে ১৫ দিনের বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে ইউনিয়নগুলোতে রাত আটটা থেকে সকাল ছয়টা পর্যন্ত মানুষ চলাচল করতে পারবে না। এছাড়া সন্ধ্যা সাতটা থেকে সকাল ছয়টা পর্যন্ত দোকানপাট বন্ধ থাকবে। অন্যদিকে জেলা শহর থেকে শুধু উপজেলা শহর পর্যন্ত যাত্রীবাহী বাস চলতে পারবে। সীমান্ত এলাকায় যেতে ছোট যানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করতে হবে।

আরও পড়ুন