লোহাগড়ায় শালিসের দুই ঘণ্টা পর সংঘাত, আহত ১০

আপডেট: 04:49:14 23/09/2020



img

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি : নড়াইলের লোহাগড়া পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের চোরখালি এলাকায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে বেসরকারি একটি কোম্পানির এক বিক্রয় প্রতিনিধিকে মারধরের ঘটনা শালিস বৈঠকে মীমাংশার দুই ঘণ্টা পরই দুই পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ উভয় পক্ষের দশজন আহত হয়েছেন। এ সময় একটি বাড়ি ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়। আহতদের লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকালে পৌরসভার চোরখালি এলাকায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে মফিদুল শেখ সমর্থিত আলিম শেখ (২৮) নামে একজনকে প্রতিপক্ষ একই গ্রামের আকুব্বর মোল্যা সমর্থিত বাহাদুর শেখ মারধর করে। এনিয়ে বুধবার সকাল সাড়ে আটটায় উভয় পক্ষের মাতব্বরসহ আশপাশের তিন গ্রামের লোকজনের উপস্থিতিতে সৃষ্ট ঘটনা মীমাংশার জন্য চোরখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে শালিসি সভার আয়োজন করা হয়। আলাপ-আলোচনা শেষে সভায় বিরোধ মীমাংশা করা হয় এবং এ নিয়ে কোনো পক্ষ ‘দ্ব›দ্ব-সংঘাত করবে না’ মর্মে অঙ্গীকার করেন।
শালিসে ঘটনার মীমাংশার পর সকাল সাড়ে দশটার দিকে উভয় পক্ষ রামদা, ঢাল-সড়কি, লাঠিসোঠা নিয়ে ওই গ্রামের ভাটাপাড়া-সংলগ্ন মাঠে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সময় লাভলী বেগম, নাহার বেগম, মিনা বেগম, মফিদুল শেখ, কাশেম শেখ, ইয়াকুব শেখ, খায়রুল আলমসহ অন্তত দশজন আহত হন। সংঘর্ষের সময় বাবলু শেখ নামে একজনের বাড়ি ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়। এলাকাবাসী আহতদের উদ্ধার করে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।
খবর পেয়ে লোহাগড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ওই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে এক নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বিশ্বনাথ দাস ভুন্ডুল বলেন, এলাকায় শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা প্রয়োজন।
লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সৈয়দ আশিকুর রহমান সংঘর্ষের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, অভিযোগ পেলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন