শার্শায় জামাইয়ের হাতে সাবেক শ্বশুর খুন

আপডেট: 02:25:16 12/10/2021



img
img
img

স্টাফ রিপোর্টার: পূর্বশত্রুতার জেরে যশোরের শার্শায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে মো. মুছা বিশ্বাস (৪৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন প্রতিপক্ষের তুহিন (২৪) ও কুদ্দুস (১৬) নামে দুই যুবক।
আজ মঙ্গলবার সকাল দশটার দিকে শার্শা উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে।
পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে। আহতরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
আহত তুহিনের ভাগ্নে মো. হাসিব জানান, সকালে মামাসহ তারা বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। ওইসময় একই গ্রামের মুছা ও ইমরান ধারালো দা দিয়ে তুহিন ও কুদ্দুসকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে আনা হয়।
শার্শা থানার ওসি বদরুল আলম খান বলেন, পূর্বশত্রুতার কারণে দুই পক্ষের হামলায় মুছা নামে একজন ঘটনাস্থলে মারা গেছেন। তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। অপর পক্ষের তুহিন ও কুদ্দুস নামে দুইজন আহত হয়ে যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার আহম্মেদ তারেক শামস বলেন, তুহিন এবং কুদ্দুসের পেট ও মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়েছে। শরীর থেকে রক্তক্ষরণ বন্ধ করা যাচ্ছে না। দুইজনের অবস্থাই আশঙ্কাজনক।

স্থানীয়দের উদ্ধৃত করে বেনাপোল থেকে আমাদের স্টাফ রিপোর্টার জানান, মুসা বিশ্বাস নিহত হয়েছেন তার মেয়ের সাবেক স্বামী ও তার সহযোগীদের হাতে।
মুসা বিশ্বাসের মেয়ের সাথে একই গ্রামের কুদ্দুসের ছেলে তুহিনের প্রায় পাঁচ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের চার বছর বয়সী একটি ছেলেসন্তান আছে। প্রায় দুই মাস আগে স্ত্রীর সাথে ছাড়াছাড়ি হয় তুহিনের।
মঙ্গলবার সকালের দিকে মুসা তার ছেলে আরিয়ানকে (৪) দাদা বাড়ি থেকে আনতে গেলে দুই পক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জামাই তুহিন (২৫) ও তার ছোট ভাই রুহিন (২০), তাদের বাবা আব্দুল কুদ্দুস (৫৫), চাচা সুসানসহ (৪৫) আরও কয়েকজন মিলে দা, বটি, বাঁশ, লাঠি ও রড নিয়ে হামলা করে। ওই সময় জামাই তুহিন ধারালো বটি দিয়ে কুপিয়ে মুসা বিশ্বাসকে মারাত্মক জখম করে। স্বজনরা উদ্ধার করে শার্শা উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

আরও পড়ুন