শাহারুলের পক্ষে-বিপক্ষে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট: 08:23:33 03/11/2019



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আরবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে নির্যাতন, নিপীড়ন, চাঁদাবাজি ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন হয়েছে। তারই পরিষদের সদস্য তরিকুল ইসলাম আজ রোববার দুপুর ১২টার দিকে প্রেসক্লাব যশোরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন।
এ ঘটনার ঘণ্টাখানেক পরই একই পরিষদের অপর পাঁচজন মেম্বার উল্টো শাহারুল ইসলামের পক্ষ নিয়ে ‘তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে’ বলে দাবি করেন।
প্রথম সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তরিকুল ইসলাম দাবি করেন, কয়েকবার তিনি ইউপি সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। বর্তমানে চেয়ারম্যান শাহারুলের নির্যাতন, নিপীড়ন, চাঁদাবাজি ও দুর্নীতির কারণে তিনি অতিষ্ট হয়ে পড়েছেন।
তরিকুল অভিযোগ করেন, দশ বছর আগেও শাহারুল ইসলামের কিছু ছিল না। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর অনিয়ম, দুর্নীতি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের মাধ্যমে তিনি কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন।
‘অনিয়ম ও দুর্নীতের প্রতিবাদ করায় চেয়ারম্যান আমাকে পরিষদ থেকে বের করে দিয়েছেন। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ আমাকে বাদ দিয়েই করা হয়। এমনকী আমার ওয়ার্ডে সরকারি সুবিধাদি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এতে করে জনগণের কাছে জবাবদিহিতা করতে হচ্ছে আমাকে। এমতাবস্থায় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি,’ বলছিলেন তরিকুল।
সংবাদ সম্মেলনে আরবপুর ইউনিয়নের পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের কিছু লোক উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে, তরিকুলের সংবাদ সম্মেলন শেষ হওয়ার পরপরই আরবপুর ইউনিয়নের পাঁচ সদস্য আশরাফুল আলম, আলতাফ হোসেন, রুবিনা পারভীন, উজ্জ্বল রহমান ও সালমা পারভীন আরেকটি সংবাদ সম্মেলন করেন।
লিখিত বক্তব্যে তারা দাবি করেন, তরিকুল একজন মাদকসেবী। তিনি নিজ বাড়িতে জুয়ার আসর বসান। তার আপন দুই ভাইপো জঙ্গি সংগঠনের নেতা। হিজবুত তাহরির খুলনা বিভাগীয় নেতা সজল তার আপন ভাইপো; যে ইতোপূর্বে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে। নিজ স্বার্থ হাসিলের জন্যে তিনি ইতোপূর্বে এই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলামকে প্রকাশ্যে মারধরও করেন।
সংবাদ সম্মেলন আয়োজকদের দাবি, তরিকুলের অপকর্মের প্রতিবাদ করায় অপরাপর মেম্বরদের তিনি নাজেহাল করেছেন এবং চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন।

আরও পড়ুন