শুক্রবার যশোরে যাদের করোনা শনাক্ত হলো

আপডেট: 09:09:05 10/07/2020



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নমুনা পরীক্ষায় শুক্রবার যে ৪৫ ব্যক্তিকে করোনা পজেটিভ বলে শনাক্ত করা হয়, তার মধ্যে নানা শ্রেণি-পেশা, বয়সের নারী-পুরুষ-শিশু রয়েছেন।
আক্রান্ত হিসেবে শনাক্তদের মধ্যে ঝিনাইদহের বারোবাজার হাইওয়ে থানার আটজন ছাড়াও যশোরে কর্মরত আরো তিনজন পুলিশ সদস্য রয়েছেন। আছেন বেশ কয়েকজন ব্যাংকার, একজন সমাজসেবা অফিসার, উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার, কলেজের অধ্যাপক, ব্যবসায়ী, কৃষক, গৃহিণী, শিক্ষার্থী, এমনকী দুই-তিন বছরের শিশুও।
স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এদিন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন মনজুর রহমান (৬০) নামে বেনাপোলের একজন সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ী, ইব্রাহিম হোসেন (৫১) নামে এক ব্যক্তি, যিনি আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক যশোর শাখায় কর্মরত, কৃষি ব্যাংক সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি শাখায় কর্মরত মতিয়ার রহমান (২৮) নামে একজন, যিনি চৌগাছা শহরের কুটিপাড়ায় বসবাস করেন।
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন গ্রামীণব্যাংক চৌগাছা শাখার কর্মী আহসান হাবিব (৩৮), যার বর্তমান অবস্থান চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার দরিয়াপুর গ্রামে। ইসলামী ব্যাংক চুয়াডাঙ্গা শাখার চাকুরে ইমামুল হক (৪৩) শনাক্ত হয়েছেন, যিনি ঝিকরগাছা উপজেলার বেনেয়ালীর বাসিন্দা। ঝিকরগাছার সমাজসেবা অফিসার আব্দুল কাদেরও (৩০) আক্রান্ত হয়েছেন। দুদক ঢাকার সহকারী পরিচালক তানভীর আহমেদ (৩০) করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, যার বাড়ি যশোর শহরের চাঁচড়া এলাকায়। আক্রান্তের তালিকায় নাম রয়েছেন মণিরামপুর উপজেলা প্রকৌশলী মো. রবিউল ইসলামের (৫০), যিনি যশোর শহরের পুরাতন কসবা বিমান অফিস মোড়ের বাসিন্দা।
পুলিশ সদস্যদের মধ্যে আক্রান্ত বলে শনাক্ত হয়েছেন ঝিনাইদহের বারবাজার হাইওয়ে থানার সানেটকান্তি (৩৪), মতিউর রহমান (২৮), মামুন (৩৬), মিথুন (২৬), জিয়াউর রহমান (৩২), রুবেল মোল্লা (২৮), রিয়াজুল ইসলাম (৩২) এবং রায়হান ইসলাম (২৮) নামে আট কনস্টেবল। এছাড়া একই পদে যশোর পুলিশ লাইনে কর্মরত তিন ব্যক্তি সাকিবুল হাসান (২১), উজ্জ্বলকুমার (২৩) ও আল আমিন (৩৫) করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন মহাবিদ্যালয়ের অধ্যাপক হারুন অর রশিদ (৫০) করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, যিনি শহরের ঘোপ সেন্ট্রাল রোড এলাকায় বসবাস করেন। সোনালী ব্যাংক চৌগাছা শাখার ম্যানেজার আতিকুল ইসলাম (৩৭), যিনি চৌগাছা শহরের আমবাগানপাড়ার বাসিন্দা, ঢাকায় বেসিক ব্যাংকের এক গাড়িচালক আব্দুল হালিম (৩০) আক্রান্ত হয়েছেন, যিনি যশোর শহরের বাসিন্দা।
এদিন আক্রান্তের তালিকায় নাম দেখা যায় দুই ও তিন বছরের দুটি শিশুর, যারা যথাক্রমে যশোর শহরের পুরাতন কসবা কাজীপাড়া ও অভয়নগরের সুন্দলী এলাকার বাসিন্দা।
শিক্ষার্থীদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন যশোর শহরের পোস্ট অফিসপাড়ার ২০ বছরের একজন, শহরের সার্কিট হাউজপাড়ার এক অষ্টাদশী এবং সদর উপজেলার একটি গ্রামের ১২ বছরের এক ছাত্রী।
স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন মণিরামপুর উপজেলার মনোহরপুরের বাসিন্দা উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার ইফতেখার (৩৩, যশোর জেনারেল হাসপাতালের একজন নিরাপত্তা প্রহরী (৩০), যিনি সদর উপজেলার মাহিদিয়া গ্রামের বাসিন্দা এবং মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক নারী পরিচ্ছন্নতাকর্মী (৩৫)।
এদিন আক্রান্ত হওয়া গৃহিণীদের মধ্যে রয়েছেন যশোর শহরের সার্কিট হাউজপাড়ার ৫০, অভয়নগরের সুন্দলী এলাকার ২৯ ও ৭০ এবং গুয়াখোলা এলাকার ৩১ ও ৫৪ বছরের পাঁচ নারী।
আক্রান্ত বলে শনাক্তদের মধ্যে আরো রয়েছেন যশোর শহরের ঘোপ নওয়াপাড়া রোডের এক বাসিন্দা (৫৫), যিনি নিজেকে কৃষক বলে পরিচয় দিয়েছেন, মুড়লি এলাকার এক মুদি দোকানি (২৯), খোলাডাঙ্গা এলাকার এক কৃষক (৬০), যিনি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন, অভয়নগরের বুইকারা এলাকার বাসিন্দা ও একটি সিরামিক কোম্পানির হয়ে ভোলায় কর্মরত ৩৫ বছরের এক ব্যক্তি, একই এলাকার শিক্ষক স্বপনকুমার বিশ্বাস (৫৬)। রয়েছেন যশোর সদরের একটি গ্রামের অভিষেক রায় (৩১) নামে এক যুবক, শার্শার ব্যবসায়ী কামাল হোসেন (২৪), মণিরামপুরের ব্যবসায়ী বিনয় অধিকারী (৪৫) এবং মো. মনিরুজ্জামান (৩৬)।

আরও পড়ুন