শুক্রবার যশোরে যেসব করোনা রোগী শনাক্ত হলেন

আপডেট: 02:34:37 31/07/2020



img

স্টাফ রিপোর্টার : শুক্রবার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনোম সেন্টার থেকে যশোর জেলার যে ২৯টি নমুনা পজেটিভ বলে জানানো হয়, সেগুলোর মধ্যে সদর উপজেলার আছে ১৭টি। এছাড়া ঝিকরগাছা উপজেলার তিনটি, কেশবপুরের দুটি, শার্শার ছয়টি এবং চৌগাছা উপজেলার একটি রয়েছে।
যশোর শহরসহ সদর উপজেলায় শনাক্তরা হলেন বকচরের শ্রাবণী (১৯), লোন অফিসপাড়ার রোকেয়া (৬০), পোস্ট অফিসপাড়ার স্বপ্না দাস(২৭), বারীনগরের মরিয়ম (৫৫), শহরের মনিরুজ্জামান (৫৪), সখিনা (৪৫) ও মোতালেব (৩০), ঘোপের রাজু (৪০) ও ডাক্তার রুমানা জাহান (৪১), পূর্ব বারান্দিপাড়ার প্রভাতকুমার রায় (৮৭) ও তাপসকুমার নাথ (৪৮), পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের এস কে আকবর হোসেন (৪৪), চুড়ামনকাটির মর্জিনা (৪০), ঝুমঝুমপুরের হাসান আলী (৪৩) এবং মো. ওবাইদুর রহমান (৩৬)। এছাড়া ঝিকরগাছার পরিচয় ব্যবহারকারী দুই ব্যক্তি যশোর জেনারেল জেনারেল হাসপাতালে নমুনা দিয়েছিলেন; যাদের ফল পজেটিভ এসেছে। তারা হলেন গোলাম মোস্তফা (৬০) ও নুর ইসলাম (৬০)।
শনাক্তদের মধ্যে শার্শা উপজেলায় আছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের শুভঙ্করকুমার মণ্ডল(২৭), দুর্গাপুরের রুনা খাতুন (৩০), পৃথক এলাকার মো. জাহিদুর রহমান (৪৩), মো. বজলুর রহমান (৪০), মো. আল আমীন (২০) এবং মো. আজগর আলী (৬২)।
কেশবপুর উপজেলায় আছেন শিখা (২৪) নামে এক যুবতী ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হুমায়ুন কবির (৪০)।
ঝিকরগাছা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন কাশিমপুরের আঞ্জুয়ারা খাতুন (৩৩), মামুন হোসেন (২০) এবং সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার মো. আব্দুল মালেক (৩৫)।
চৌগাছা উলজেলায় আছেন দুর্গাপুরের জাহানারা বেগম(৫৫)।
স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৯ ও ৩০ জুলাইয়ের ১১০টি নমুনা পরীক্ষার অপেক্ষায় আছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষণ দলের সদস্য ড. শিরিন নিগার জানিয়েছেন, আজ শুক্রবার থেকে তিনদিন তাদের ল্যাব বন্ধ থাকবে। ৩ আগস্ট তারা কাজ শুরু করবেন এবং ৪ আগস্ট থেকে যথারীতি ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

আরও পড়ুন