শৈলকুপায় এবার কাউন্সিলর প্রার্থী খুন

আপডেট: 02:26:16 14/01/2021



img

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: শৈলকূপায় এবার মিললো কাউন্সিলর প্রার্থীর মরদেহ। প্রচারণা করতে গিয়ে কাউন্সিলর প্রার্থীর ভাইয়ের খুনের পাঁচ ঘণ্টার মাথায় স্বতন্ত্র কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর হোসেন বাবুর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নদীর মধ্যে দাঁড় করানো অবস্থায় ছিল তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।
বুধবার (১৩ জানুয়ারি) রাত আটটার দিকে কবিরপুর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত হোসেনের ভাই আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত হোসেন ওরফে বল্টু (৫০) ছুরিকাঘাতে নিহত হন। তিনি উমেদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক।
এলাকাবাসী জানান, আট নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত হোসেন ও তার ছোট ভাই আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত হোসেন বল্টু পৌর এলাকার কবিরপুরের ভূইমালীপাড়ায় গিয়েছিলেন প্রচারণা চালাতে। ওই সময় তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী পানজাবি মার্কার আলমগীর হোসেন বাবুর সমর্থকরা তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। হামলায় বল্টুর ভাই কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত হোসেনও আহত হন । হামলার পর গুরুতর আহত বল্টুকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু ঘটে।
এ ঘটনার পাঁচ ঘণ্টা পর রাত একটার দিকে নদীতে পাওয়া যায় একই ওয়ার্ডের স্বতন্ত্র কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর হোসেন বাবুর মরদেহ। নদীর ভেতরে দাঁড় করানো অবস্থায় ছিল তার মরদেহ।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, দুটি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে প্রচার-প্রচারণাকে কেন্দ্র করে। একটি ঘটনার জেরে আরেকটি ঘটনা ঘটেছে। এদিকে কমিশনার প্রার্থী আলমগীর হোসেনের সমর্থক ও পরিবার দাবি করছে, পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করা হয়েছে।
আরও পড়ুন- শৈলকুপায় ভোট চাইতে গিয়ে প্রার্থীর ভাই খুন
পরপর দুই গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনায় শৈলকুপার ভোটারদের মাঝে চরম উদ্বেগ-আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। শহরসহ পৌর এলাকার সর্বত্র পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মোড়ে মোড়ে পুলিশ চেকপোস্ট বসিয়েছে।
শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানান, কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর হোসেন বাবুর মৃত্যুর কারণ তদন্তের পর জানা যাবে।

আরও পড়ুন