সাতক্ষীরায় উফশী জাতের সর্ষে আবাদ বাড়ছে

আপডেট: 06:23:30 09/01/2020



img

আব্দুস সামাদ, সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরা জেলায় উচ্চফলনশীল (উফশী) জাতের সর্ষের আবাদ বাড়ছে। কৃষকরা বলছে, স্থানীয় জাতের তুলনায় উচ্চফলনশীল বারি ও বিনা জাতের সরিষা উৎপাদনে লাভ বেশি। ফলে গত বছরের তুলনায় চলতি মৌসুমে এই তেলজাতীয় ফসলটির আবাদ বেড়েছে প্রায় ২৫ শতাংশ।
সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মাহমুদপুর গ্রামের কৃষক আমজাদ হোসেন জানান, চলতি মৌসুমে তিন বিঘা জমিতে বারি-১৫ জাতের সর্ষের আবাদ করেছেন। জমি চাষ, বীজবপন ও সার কীটনাশক দিয়ে বিঘাপ্রতি ছয় থেকে সাড়ে ছয় হাজার টাকা উৎপাদন খরচ হবে। এ হিসেবে তিন বিঘা জমির সর্ষে উৎপাদনে ১৯ থেকে ২০ হাজার টাকা খরচ পড়বে তার।
তিনি বলেন, তিন বিঘা জমিতে ৮০০ থেকে ৮৫০ কেজি সর্ষে উৎপাদন হবে বলে আশা করছেন। যার বাজারমূল্য ৫০ হাজার থেকে ৫৫ হাজার টাকা।
তিনি বলেন, গেল বছর সমান আয়তনের জমিতে এই উচ্চফলনশীল জাতের সর্ষে আবাদ করে খরচ বাদে ৩৫ হাজার টাকা লাভ হয়েছিল। কয়েক বছর আগেও স্থানীয় জাতের সর্ষে চাষ করে বিঘাতে চার হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকা লাভ হতো। কিন্ত উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শে গত দুই বছর উচ্চফলনশীল বারি-১৫ জাতের সর্ষে আবাদ করে বেশি লাভবান হচ্ছেন।
একই উপজেলার সীমান্তবর্তী ছনকা গ্রামের কৃষক কোরবান আলী জানান, চলতি মৌসুমে দুই বিঘা জমিতে বিনা-৯ জাতের সর্ষে চাষ করেছেন। অন্যান্য বছরে স্থানীয় জাতের সর্ষে চাষ করলেও এই প্রথমবার তিনি বিনা জাতের আবাদ করছেন।
তিনি বলেন, গাছে যে পরিমাণ ফুল এসেছে তাতে ফলন ভালো হবে বলে আশা করছেন এই কৃষক।
এদিকে, সাতক্ষীরা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী চলতি ২০১৯-২০ মৌসুমে জেলার সাতটি উপজেলায় সর্ষে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১২ হাজার ৬৫০ হেক্টর; যা গত মৌসুমের তুলনায় তিন হাজার ৩৫৮ হেক্টর পরিমাণ।
গেল বছর সাতক্ষীরায় সর্ষে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছিল নয় হাজার ১৪২ হেক্টর।
সাতক্ষীরা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক অরবিন্দ বিশ্বাস জানান, জেলায় চলতি মৌসুমে উচ্চফলনশীল জাতের পাঁচ প্রকার সর্ষে আবাদ হয়েছে। এরমধ্যে বারি-১৪, ১৫, ১৭ এবং বিনা ৪ ও ৯।
তিনি আরো বলেন, কৃষক এখন স্থানীয় জাতের সর্ষে চাষ করতে চায় না। কারণ বারি এবং বিনা উচ্চফলনশীল জাতের সহজলভ্যতা। স্থানীয় জাতে হেক্টরপ্রতি সর্বোচ্চ উৎপাদন হয় এক টন। সেখানে বারি এবং বিনা হেক্টরপ্রতি দুই টন পর্যন্ত ফলে।

আরও পড়ুন