সাতক্ষীরায় কর্মজীবী কিশোরের গলিত লাশ উদ্ধার

আপডেট: 01:46:59 11/08/2020



img

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : নিখোঁজের দশ দিন পর সাতক্ষীরার বাঁকাল এলাকার একটি পরিত্যক্ত ইটভাটার সেপটিক ট্যাংক থেকে কিশোর ইজিবাইকচালক (অটোরিকশা) ও স্কুলছাত্র ময়নুর রহমানের গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ দেবহাটা উপজেলার শ্রীরামপুর থেকে একজনকে গ্রেফতার করেছে।
সোমবার বিকেলে তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক পুলিশ বাঁকাল এলাকার ‘জয়েন্ট ব্রিকস’ নামে ওই পরিত্যক্ত ইটভাটার সেপটিক ট্যাংক থেকে লাশটি উদ্ধার করে।
নিহত ইজিবাইক চালক ময়নুর রহমান (১৬) সদর উপজেলার পাঁচরকি গ্রামের সুরত আলীর ছেলে ও মীর্জাপুর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র।
এদিকে, এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থাকার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তির নাম হুমায়ন কবির (৩৬)। তিনি সদর উপজেলার আলীপুর গ্রামের আহাদ আলীর ছেলে।
পুলিশ জানায়, হুমায়ন পেশাদার চোর। অধিকতর তদন্ত শেষে হুমায়ুন ও তার চক্র সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো যাবে।
সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আসাদুজ্জামান জানান, ঈদের আগের দিন গত ৩১ জুলাই প্রতিদিনের মতো ময়নুর তার স্কুলের লেখাপড়া শেষ করে বিকেল সাড়ে চারটার দিকে বড় ভাইয়ের ইজিবাইকটি নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে সাতক্ষীরা শহরের দিকে আসে। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত শহরের বিভিন্ন স্থানে ইজিবাইক চালানোর পর সে নিখোঁজ হয়। পরদিন ১ আগস্ট (ঈদের দিন) ময়নুরের চাচা আফছার আলী সদর থানায় ‘ময়নুর নিখোঁজের হয়েছে’ মর্মে একটি জিডি করেন। জিডি নম্বর ২০, তারিখ ০১.০৮.২০২০।
এরই সূত্র ধরে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আসাদুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মীর্জা সালাহ উদ্দীন ও সদর থানার ওসি আসাদুজ্জামানে নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনার দশ দিন পর সোমবার দুপুরে ইজিবাইকচালক ময়নুর হত্যায় জড়িত অভিযোগে হুমায়ন কবির নামে এক ব্যক্তিকে তার শ্বশুরবাড়ি দেবহাটা উপজেলার শ্রীরামপুর থেকে গ্রেফতার করেন। একই সঙ্গে উদ্ধার করেন ময়নুরের ইজিবাইক। এরপর তার দেওয়া স্বীকারোক্তি মোতাবেক শহরের অদূরে বাঁকাল এলাকায় ‘জয়েন্ট ব্রিকস’ নামে একটি পরিত্যক্ত ইটভাটার সেপটিক ট্যাংক থেকে ময়নুরের লাশ উদ্ধার করা হয়।
সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মীর্জা সালাহ উদ্দীন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ইজিবাইকচালক ময়নুর হত্যায় জড়িত অন্য আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় হত্যা মামলা হচ্ছে।

আরও পড়ুন