পরকীয়ার কারণে কুষ্টিয়ায় ট্রিপল মার্ডার!

আপডেট: 10:43:32 13/06/2021



img

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়া শহরে দিনে দুপুরে পুলিশের এক এএসআই তার দ্বিতীয় স্ত্রী ও তার ছেলেসহ তিনজনকে গুলি করে হত্যা করেছে।
বেলা ১১টার দিকে শহরের কাস্টমস মোড় এলাকার একটি মার্কেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। অস্ত্রসহ ঘাতক এএসআই সৌমেন রায়কে আটক করেছে পুলিশ।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল ১১টার পর শহরের কাস্টম মোড় এলাকায় এএসআই সৌমেন হঠাৎ করে এক শিশুকে পেছন থেকে গুলি করলে পড়ে যায় সে। এরপর এক নারী ও এক পুরুষকে গুলি করে। গুলির শব্দ শুনে এলাকাবাসী ও মার্কেটের ব্যবসায়ীরা ধাওয়া দিয়ে ওই ঘাতককে একটি বাড়ির মধ্যে আটকে রাখে। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে এএসআই সৌমেনকে অস্ত্রসহ আটক করে নিয়ে যায়।
আর গুলিবিদ্ধ আহতদের উদ্ধার করে কুষ্টিয়ার জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনজনই মারা যান। এদের মধ্যে একজন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার সাঁওতা গ্রামের বিকাশ কর্মী শাকিল খান। আর নারীর নাম আসমা ও শিশুর নাম রবিন। নিহত নারী সৌমেনের দ্বিতীয় স্ত্রী। দেড় বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। আসমা ও শাকিলের বাড়ি কুমারখালী উপজেলার চাপড়া ইউনিয়নের সাঁওতা গ্রামে। শিশুটি আসমার ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার তাপস কুমার সরকার।
কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার মো. খাইরুল আলম জানান, সৌমেন রায় খুলনার ফুলতলা থানায় কর্মরত। এর আগে তিনি কুষ্টিয়ায় চাকরি করেছেন। পরকীয়ার জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। বিষয়টি তদন্ত করে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও জানান পুলিশ সুপার।
এই ঘটনায় খুলনা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি একেএম নাহিদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসে বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ইতোমধ্যেই খুলনা পুলিশ অবগত হয়েছে। এটা একটি ঘৃণিত অপরাধ। ঘটনায় পুলিশ কোনো গড়িমসি করবে না জানিয়ে অতিরিক্ত ডিআইজি আরো বলেন, হত্যাকারী পুলিশের এএসআই সৌমেন রায়ের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন