৫৪টি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানকে আলটিমেটাম

আপডেট: 09:40:28 25/09/2021



img

স্টাফ রিপোর্টার, বেনাপোল (যশোর): হালনাগাদ লাইসেন্স করতে যশোরের তিন উপজেলার ৫৪টি বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক এবং ডায়াগনস্টিক সেন্টার মালিককে ১৫ দিন সময় দেওয়া হয়েছে। যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন স্বাক্ষরিত পরিপত্রে ২৩ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) প্রতিষ্ঠান মালিকদের কাছে এই নোটিস পাঠানো হয়েছে। সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের তথ্য কর্মকর্তা ডা. রেহেনেওয়াজ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
এদিকে, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক-সেবিকা না থাকাসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে তিন উপজেলায় ইতোমধ্যে ১৯টি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা করা হয়েছে।
সিভিল সার্জন অফিস জানিয়েছে, স্বাস্থ্য অধিদফতরের ঘোষণা অনুযায়ী নতুন প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স গ্রহণ ও পুরনো প্রতিষ্ঠানগুলোর লাইসেন্স নবায়ন করার জন্য তাগিদ দেওয়া হয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ৫৪টি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের আবেদন অধিদফতরে জমা পড়েনি।
সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা ডা. রেহেনেওয়াজ জানান, সরকারের নির্দেশনার বাইরে পরিচালিত ক্লিনিক ডায়াগনস্টিকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে জেলা স্বাস্থ্য প্রশাসন। স্বাস্থ্য প্রশাসনের প্রধান সিভিল সার্জনের নির্দেশে লাইসেন্স করার জন্য ১৫ দিনের সময় দিয়ে ৫৪টি প্রতিষ্ঠান মালিককে পরিপত্র পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে যশোরের শার্শা উপজেলায় ২১টি, ঝিকরগাছা উপজেলায় ২১টি ও চৌগাছা উপজেলায় ১২টি রয়েছে।
তিনি আরও জানান, আল্টিমেটাম দিয়ে পাঠানো পত্রে লাইসেন্সের জন্য সঠিকভাবে আবেদন করতে বলা হয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতরে।
এদিকে, সম্প্রতি যশোর জেলার অনেকগুলো বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিদর্শন করেছেন সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন। পরিদর্শনকালে জেলার শার্শা, ঝিকরগাছা ও চৌগাছার ১৯টি বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নানা অনিয়ম দেখতে পান তিনি। ওই সব প্রতিষ্ঠানে রোগীর অস্ত্রোপচারের সময় অজ্ঞান করা চিকিৎসক (অ্যানেসথেসিস্ট) থাকেন না। নিজস্ব বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, সেবিকা ও প্যাথলজিস্ট নেই। এছাড়া নিম্নমানের অস্ত্রোপচার কক্ষ, প্যাথলজি বিভাগে নোংরা পরিবেশ ছাড়াও মানুষকে জিম্মি করে অর্থ আদায়, অনুমোদনের চেয়ে অতিরিক্ত বেড ব্যবহার ও অপচিকিৎসা করা হয়। যে কারণে সিভিল সার্জনের নির্দেশে সেগুলো সিলগালা করা হয়।
সিল হওয়া ১৯টি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান হলো যশোরের শার্শা উপজেলার রজনী ক্লিনিক, পল্লী ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার, জোহরা ক্লিনিক, ল্যাবজোন ডায়াগনস্টিক সেন্টার, মা-মনি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার, মুক্তি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার, উপলক্ষ ক্লিনিক; ঝিকরগাছার বাঁকড়া সার্জিক্যাল ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, সায়রা সার্জিক্যাল, আনিকা ক্লিনিক, ফেমাস মেডিকেল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ছুটিপুর প্রাইভেট ক্লিনিক, এস এস ক্লিনিক, আয়শা ক্লিনিক, শাপলা ক্লিনিক, সালেহা ক্লিনিক, সীমান্ত ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং চৌগাছা উপজেলার মায়ের দোয়া প্রাইভেট ক্লিনিক ও মধুমতি ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার।
যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, যশোর জেলার কোন কোন হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার হালনাগাদ লাইসেন্স আছে ও কারা লাইসেন্স পাওয়ার জন্য অনলাইনে আবেদন করেছেন তিনি জানেন। ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জেলার তিন উপজেলার ৫৪টি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের আবেদন স্বাস্থ্য অধিদফতরে যায়নি। নতুন করে ত্রুটিমুক্ত আবেদন করার জন্য ১৫ দিনের আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে। বেধে দেওয়া সময়ের মধ্যে আবেদন না করলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সিভিল সার্জন আরও জানান, ইতোমধ্যে নানা অনিয়মের কারণে জেলার শার্শা, ঝিকরগাছা ও চৌগাছার ১৯টি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বিভিন্ন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিদর্শন কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। অনিয়ম চোখে পড়লেই বন্ধ করা হবে। সরকারের নির্দেশনার বাইরে চালানোর সুযোগ দেওয়া হবে না।

আরও পড়ুন