ইরান-আতঙ্কে যুক্তরাষ্ট্র

আপডেট: 06:47:24 06/10/2021



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক: পরমাণু অস্ত্র তৈরি বিষয়ে ইরান বহুদূর অগ্রসর হয়েছে। এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে আতঙ্ক বিরাজ করছে।
মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা বলেছেন, ইরানকে থামাতে ওয়াশিংটন দ্রুত তেহরানের সঙ্গে আলোচনায় বসতে যাচ্ছে।
সৌদি আরবভিত্তিক আরব নিউজের খবরে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইলের জাতীয় নিরাপত্তা টিমের আলোচনায় ইরানের পরমাণু কর্মসূচি প্রাধান্য পাচ্ছে। ইরানকে থামাতে চির প্রতিদ্বন্দ্বী ইসরাইল তেহরানে হামলার পরিকল্পনাও প্রকাশ করেছে।
ইরান যাতে পরমাণু অস্ত্র অর্জন করতে না পারে সেজন্য তেহরানের সঙ্গে ২০১৫ সালে চুক্তি করেছিল যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, রাশিয়া, চীনসহ বিশ্বের ছয় শক্তিধর দেশ।
কিন্তু ওবামার আমলে সম্পাদিত চুক্তিটিকে ‘বাজে চুক্তি’ উল্লেখ করে ডোনাল্ড ট্রাম্প চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নেয়। ট্রাম্প শুধু এটা করে ক্ষ্যান্ত হননি, তিনি ইরানের ওপর ব্যাপক অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন যার ফলে ইরানের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
গত বছর ইরানের শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে ড্রোন হামলায় হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্র। এ হত্যাকাণ্ডের পর ইরান ঘোষণা দেয়, ২০১৫ সালের পরমাণু চুক্তিতে যেসব নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল, তার কোনোটিই তারা আর মেনে চলবে না।
এরপর আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় ইরান পরমাণু চুল্লি বৃদ্ধি করছে বলে খবর বেরিয়েছে।
সম্প্রতি ইসরাইলের প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রধান বেনি গ্যান্টজ বলেছেন, পরমাণু অস্ত্র বানানোর সক্ষমতা থেকে ইরান আর মাত্র দুই মাস দূরে আছে। জাতিসংঘের পরমাণু তদারক সংস্থাও সম্প্রতি ইরানের পরমাণু অস্ত্র নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।
যুক্তরাষ্ট্র এই মুহূর্তে ইরানকে পরমাণু চুক্তিতে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছে। এ লক্ষ্যে গত মে মাস থেকে ইরানের সঙ্গে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় অন্তত ছয় দফা বৈঠকও করেছে। কিন্তু আলোচনা ফলপ্রসূ হয়নি।
মঙ্গলবার বাইডেন প্রশাসনের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, ইরানের সঙ্গে এখনো আলোচনার পথ খোলা আছে। কয়েকটি পক্ষের কাছে ইরান ইঙ্গিত পাঠাচ্ছে তারাও আলোচনায় ফিরতে চায়। এখন দেখার বিষয় আদৌ তারা আলোচনায় যুক্ত হয় কি না।
ইরানের চির প্রতিদ্বন্দ্বী ইসরাইলসহ সৌদি মিত্র দেশগুলো মনে করছে, আলোচনার মাধ্যমে ইরানকে পরমাণু অস্ত্র তৈরি থেকে ফেরানো যাবে না। তবে যুক্তরাষ্ট্র মনে করছে, ইরানকে থামাতে কূটনৈতিক পথই সর্বোত্তম।
সূত্র: যুগান্তর

আরও পড়ুন