'সরকারি সিদ্ধান্ত গণমৃত্যুর পথ প্রশস্ত করবে'

আপডেট: 07:26:21 30/05/2020



img

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা সংক্রমণের সর্বোচ্চ ঝুঁকির সময় 'সবকিছু খুলে দেওয়ার' সরকারি সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী)।
দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল হাসান ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির জাহিদ এক বিবৃতিতে বলেন, 'বিশেষজ্ঞদের মতামত ও দৈনিক পরীক্ষার ফলাফল বলছে, আমরা এখন চরম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছি। এরূপ সময় সামগ্রিক অবস্থা বিবেচনা না করে পূর্বের ন্যায় আত্মঘাতী এই সিদ্ধান্ত ব্যাপক সংক্রমণ ও গণমৃত্যুর পথকেই প্রশস্ত করবে।'
বিবৃতিতে বলা হয়, 'ইতিমধ্যেই গ্রাম-গ্রামান্তরে ব্যাপক সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। শুরু থেকেই সরকারের দায়িত্বহীনতা, অব্যবস্থাপনা, অবাধ দুর্নীতি এবং তথ্য গোপন করে পরিস্থিতি জটিল করা হয়েছে। পরীক্ষা, চিকিৎসা ও নিরাময়ের জন্য যথাযথ সময়ে ও যথোপযুক্ত উদ্যোগ নেয়নি সরকার। সাধারণ রোগীরা বিনা চিকিৎসায় পথে-ঘাটে মৃত্যুবরণ করছে। এই মৃত্যুর দায়ভারও সরকার এড়াতে পারে না। সরকার শুরু থেকেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বিশেজ্ঞদের নির্দেশনা উপেক্ষা করে জাতিকে ভয়ঙ্কর মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছে। যথাযথ দায়িত্ব পালন না করে চিকিৎসা ও খাদ্য নিরাপত্তায় দলীয়করণ ও দুর্নীতিবাজদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। কথিত জাতীয় কমিটির নামে এক ঠুঁটোজগন্নাথ কমিটি করা হয়েছে, যার কোনো ভূমিকা দেখা যায় না। সব দল ও সব মতের সমন্বিত উদ্যোগেতো কমিটি করা হয়ইনি, এমনকি নিয়মরক্ষার খাতিরেও ১৪ দলকেও পাত্তা দিচ্ছে না।'
তারা বলেন, 'অর্থনীতির দোহাই দিয়ে জীবন-জীবিকার পারস্পরিক সম্পর্ককে অস্বীকার করে গোটা জাতিকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়ে লুটেরা ধনিক শ্রেণিকে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ লুটপাটের সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে। গতকালের পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী আক্রান্ত এক চতুর্থাংশ। প্রতিদিন মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। পৃথিবীর যে সকল দেশ লকডাউন তুলে নিচ্ছে, তাদের সংক্রমণ ও মৃতের হার প্রতিদিন নিম্নমুখী। আর আমাদের ঊর্ধ্বমুখী। এই পরিস্থিতিতে সবকিছু খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত শুধু গণবিরোধীই নয়, হঠকারি ও আত্মঘাতীও বটে।'
দলটির বিবৃতিতে এই 'আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত' এখনি পরিহারের দাবি করা হয়।
পার্টির কেন্দ্রীয় মিডিয়া সেলের ইনচার্জ সিরাজুম মুনীর এই তথ্য দিয়েছেন।

আরও পড়ুন