অবশেষে চৌগাছার সেই মেলা উচ্ছেদ

আপডেট: 06:34:07 21/09/2021



img
img

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি: চৌগাছার হাজরাখানা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ ও সীমানার চারপাশে অনুমতি ছাড়া চলা ‘বলুহ মেলা’ উচ্ছেদ করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে সহকারী কমিশনার (ভূমি) কাফী বিন কবির ও চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজের নেতৃত্বে এই অভিযান চালানো হয়।
এ প্রতিবেদন লেখার সময় বিকেল চারটায় মেলার মাঠ থেকে স্থানীয়রা ফোনে জানান, দোকানিরা পসরা গুছিয়ে নিয়ে চলে গেছেন, কেউ কেউ চলে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন।
এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) কাফী বিন কবির বলেন, মেলা আয়োজনের অনুমতি ছিল না। তবুও তারা স্কুলমাঠের আশেপাশে মেলা বসিয়েছিলেন। সব দোকানিকে আজ মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার মধ্যে মালামাল সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামীকাল মাঠে কোনো দোকান থাকলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এর আগে গত শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) অনুমতিবিহীন মেলা বন্ধের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং ওসির কাছে আবেদন করেন বলুহ দেওয়ানের মাজার কমিটির সভাপতি আশাদুল ইসলাম আশা। এরপরও মেলা বন্ধ না করে স্থানীয় প্রভাবশালীদের ইশারায় মাজারের আশপাশ থেকে দোকান তুলে গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ও চারপাশে বসানো হয়।
বিষয়টি নিয়ে সোম ও মঙ্গলবার সুবর্ণভূমিসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এরপরই মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) কাফী বিন কবির ও চৌগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম সবুজের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে মেলার মাঠে গিয়ে দোকানপাট উঠিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। ওই সময় তাদের সাথে থানার দ্বিতীয় কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) মেহেদী হাসান, ডিএসবির উপ-পরিদর্শক (এসআই) সিদ্ধার্থ সাহাসহ পুলিশ ও আনসার সদস্যরা ছিলেন।
অভিযানের সময় মেলামাঠে অবস্থিত হাজরাখানা জামে মসজিদের মাইকে মাঠ থেকে সকল দোকান উঠিয়ে নেওয়ার নির্দেশনা ঘোষণা করা হয় বলে জানান স্থানীয়রা।
প্রতি বাংলা সনের ভাদ্রমাসের শেষ মঙ্গলবার উপজেলার হাজরাখানা গ্রামে কপোতাক্ষ নদের তীরে পীর বলুহ দেওয়ানের মাজার ঘিরে বসে এই মেলা। কিন্তু করোনাভাইরাসজনিত পরিস্থিতির কারণে দুই বছর মেলা আয়োজনের অনুমতি দেয়নি প্রশাসন।
চৌগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন, ‘গত ১৮ সেপ্টেম্বর মাজার কমিটির সভাপতির আবেদনের প্রেক্ষিতে মাজার এলাকা থেকে দোকানপাট উঠিয়ে দেওয়া হয়। তবুও তারা সেসব দোকান বিদ্যালয়ের চারপাশে বসায়। আমরা উপস্থিত থেকে তাদের দোকান সরিয়ে নেওয়ার সময় দিয়েছি। মঙ্গলবার সন্ধ্যার মধ্যেই ব্যবসায়ীরা দোকান সরিয়ে নেবেন।’